মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’তে আপনাকে স্বাগতম

মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’ এর রথ (ফাইল ছবি)
মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’ এর রথ (ফাইল ছবি)
যা কিছু সুন্দর; যা কিছু সত্য,তারই বন্দনা আজ অতি জরুরী। নব জীবনের নব যাত্রার সন্ধিক্ষণে আপনাকে স্বাগত জানায়। মানবিক মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় প্রাণে প্রাণ মিলিয়ে আসুন ওয়াগ্যোই মিলনমেলায় সমবেত হই; সকলের শান্তি কামনায় প্রাণের উচ্ছাস ছড়িয়ে দিই নব দিগন্তে। এভাবেই মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’ (প্রবারণা পূর্ণিমা) তে আপনাকে স্বাগত জানাচ্ছে উৎসব উদযাপন কমিঠি।

“অতীতের ব্যর্থতা আজ মুছে দিয়ে যায়
নতুনের অঙ্গীকার আর উদ্দীপনায়
ছুটেছি ছুটেছি সন্মুখে ছুটেছি
সত্য সুন্দরের সম্ভবনায়”

আতশবাজি, রং-বেরংয়ের বর্ণিল ফানুসের ঝলকানি আর ময়ুরপঙ্খীর আদলে তৈরী মাহারথ টানা উৎসবের মধ্যে দিয়ে পাহাড়ের বৌদ্ধ অনুসারীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’ (প্রবারণা পূর্ণিমা) উৎযাপনে মেতে উঠবে। আদিবাসী মার্মা সম্প্রদায়ের এই বর্ণিল আয়োজনের আমন্ত্রনে সাড়া দিতে নিশ্চিয় আপনিও উপস্থিত হচ্ছেন।

মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’ এর রথ (ফাইল ছবি)
মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’ এর রথ (ফাইল ছবি)

জেনে নেয়া যাক কখন, কোথায় কি থাকছে মাহা ‘ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ’ এর অনুষ্ঠানে।

১৫ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭টায় শহরের রাজার মাঠে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
১৬ অক্টোবর সন্ধ্যায় ৬টায় বন্ধনার উদ্দ্যেশে খ্যংওয়া ও খ্যংফিয়া ক্যং এ রথ যাত্রার শুভ উদ্ভোধন।
১৬ অক্টোবর সন্ধ্যায় ৬টায় শহরের রাজারমাঠ থেকে ফানুস উত্তোলন। যা শহরের সব ক্যং থেকে উত্তোলন করা হবে।
১৬ অক্টোবর সন্ধ্যায় ৬টা থেকে শহরের বিভিন্ন পাড়ায় তৈরী করা হবে পিঠা।
১৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় ৬টা থেকে পুরাতন রাজবাড়ীর মাঠ থেকে রথ টানা হবে। যা শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে উজানি পাড়ার সাঙ্গু নদীতে বিসর্জন দেওয়া হবে।
১৮ অক্টোবর খ্যংওয়া ও খ্যংফিয়া ক্যং এ বিকাল ৪টায় বিহারের উদ্দেশ্যে গমন, পঞ্চশীল গ্রহণ ও ধর্ম দেশনার মধ্যে দিয়ে এই উৎসবের ইতি টানা হবে।
প্রসঙ্গত, ঈদ, শারদ উৎসব এর সাথে আদিবাসীদের ভিন্ন আয়োজনের এই ধর্মীয় উৎসব পড়ার কারনে প্রতিবছর তিন পার্বত্য জেলায় দেশি-বিদেশী পর্যটকরা ভীর জমায়।

আরও পড়ুন
Loading...