রাঙামাটিতে আজ রাত থেকেই বিধিনিষেধ কার্যকর

রেড জোন

রাঙামাটি জেলা রেড জোন ঘোষণার পর আজ রাত থেকেই জেলা প্রশাসন বিধিনিষেধ কার্যকর করছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের বিভিন্ন এলাকায় জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে করোনা সচেতনতামূলক ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানো হয়েছে।

রাঙামাটি জেলাকে করোনা সংক্রমনের রেড জোন ঘোষনা করায় নড়েচড়ে বসেছে স্থানীয় প্রশাসন। সতর্কতার জের হিসেবে সংক্রমনরোধ ও সচেতনতার করণীয় ঠিক করতে আজ বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে জরুরী সভার আয়োজন করা হয়। এতে সভাপত্বি করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।

সংক্রমনের হার উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় সভায় বেশি কিছু গুরুত্বপুর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সরকার ঘোষিত প্রজ্ঞাপন অনুসারে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে, মাস্ক পরিধান করতে হবে। রাত আটটার মধ্যে দোকানপাঠ বন্ধ রাখতে হবে। হোটেল রেস্তোরাগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিচালনা করতে হবে এবং অবশ্যই রাত ১০ টায় বন্ধ করতে হবে। হোটেল রেস্তোরাতে যারা অবস্থান নিবেন তাদের অবশ্যই টিকা কার্ড সঙ্গে রাখতে হবে। পর্যটনস্পটগুলোতে যাতে ভিড় লেগে না থাকে তার জন্য স্বেচ্ছাসেবক টিম কাজ করবে। যানবাহন অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচল করবে। এছাড়া সরকারের সব নির্দেশনা বাস্তবায়ন তদারকি করতে প্রশাসনের একাধিক মোবাইল টিম কাজ শুরু করেছে।

রাঙামাটি পুলিশ সুপার মীর মোদ্দাছ্ছের হোসেন বলেন, রাঙামাটিবাসীকে অনুরোধ জানাবো সকল ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করার জন্য। যারা এই নিষেধ মানবে না তাদের জেলও হতে পারে।

এদিকে, সিভিল সার্জন ড. বিপাশ খীসা জানান, রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে করোনা রোগীর চিকিৎসা দিতে আলাদা ইউনিট প্রস্তুত রাখা হয়েছে। রাঙামাটি জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কাজ করছে।

প্রসঙ্গত, গত১২ জানুয়ারি রাঙামাটি ও ঢাকা জেলাকে করোনা সংক্রমণে রেড জোন হিসেবে চিহিৃত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। অপরদিকে খুবই কম সংখ্যক টেস্ট করার তালিকায় রয়েছে বান্দরবান, পঞ্চগড় জেলা।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।