রাঙামাটিবাসীর স্বপ্নের চেঙ্গী সেতু কাল উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

সেতু প্রকল্পে ২২৭ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়

পার্বত্য রাঙামাটির সর্ববৃহৎ নানিয়ারচরের চেঙ্গী সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হতে যাচ্ছে ১২ জানুয়ারী বুধবার। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এদিন সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই সেতুটি উদ্বোধন করবেন।

এ উপলক্ষে উপজেলার নানিয়ারচর সেতু এলাকায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে স্থানীয় প্রশাসন। এতে উপস্থিত থাকবেন রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধি, উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতারা।

সুত্র মতে, এটি পার্বত্য চট্টগ্রামের সবচেয়ে দীর্ঘতম ও দৃষ্টিনন্দন সেতু। এটির দৈর্ঘ্য ৫০০ মিটার এবং প্রস্থ ৯.৮ মিটার। এই সেতু প্রকল্পের মোট বাজেট ২২৭ কোটি ৬১ লাখ টাকা। এর মধ্যে ভূমি অধিগ্রহণের জন্য খরচ হয়েছে ৪৬ কোটি ৬১ লাখ টাকা। সেতুটির সঙ্গে সংযোগ সড়ক রয়েছে ২.২ কিলোমিটার। যার মাধ্যমে রাঙামাটির লংগদু হয়ে খাগড়াছড়ির দিঘীনালা দিয়ে বাঘাইছড়ির মারিশ্যা ও সাজেক পর্যন্ত যাওয়া যাবে।

২০১৫ সালের ৩১ অক্টোবর রাঙামাটি সফরে এসে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নানিয়ারচরের চেঙ্গি নদীর ওপর সেতুটি নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন। এর দুই বছর পর ২০১৬ সালের ১ নভেম্বর থেকে সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্বে ছিলেন সেনাবাহিনীর ১৯ ইঞ্জিনিয়ারিং কন্সট্রাকশন ব্যাটালিয়ন (ইসিবি)।

এই সেতু নির্মানের ফলে সারাদেশের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন হবে। ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নতি ও অগ্রগতি হবে এবং পর্যটনশিল্পের বিকাশ ঘটবে। কৃষি ও অর্থনীতিতে গুরুত্বপুর্র্ণ ভূমিকা রাখবে। বদলে যাবে স্থানীয়দের জীবনযাত্রার মান।

নানিয়াচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিউলি রহমান তিন্নি জানান, বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চেঙ্গি নদীর উপর নির্মিত নানিয়ারচর সেতুটি উদ্বোধন করবেন। সেতু উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তা থাকবে বলেও জানান তিনি।

নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রগতি চাকমা বলেন, চেঙ্গি সেতুর কারণে পাশের ২ উপজেলা লংগদু ও বাঘাইছড়ির সঙ্গে যোগাযোগ ও ব্যবসা-বাণিজ্যের পথ উন্মুক্ত হবে। এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে আমুল পরিবর্তন আসবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।