রাঙামাটির নিত্যপণ্যের বাজার স্বাভাবিক হচ্ছে

রাঙামাটির নিত্যপণ্যের বাজার
রাঙামাটি পার্বত্য জেলায় পাহাড় ধসের ঘটনায় রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়ক বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর গত তিন দিন ধরে কাপ্তাই রাঙামাটি নৌ-পথ চালু হওয়ায় রাঙামাটির বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য ও জ্বালানী সরবরাহ স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে।
বাজার ঘুরে দেখা গেছে কাঁচা তরি তরকারী, সামুদ্রিক মাছ, মুদি দোকানের পণ্য সামগ্রী, জ্বালানী তেলসহ বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী রাঙামাটির বাজারে সরবরাহ করছে।
ক্রেতা বিক্রেতারা জানিয়েছে বর্তমানে বাজারে পণ্যের কোন সংকটও নেই দ্রব্যমুল্য স্থিতিশীল রয়েছে। পাহাড় ধসের ঘটনার দুই দিন পরই বাজার পরিস্থিতি অস্থির করে তোলার চেষ্টা করা হলে প্রশাসনের দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহন করলে বাজারে পণ্য সরবরাহ ও মূল্য নিয়ন্ত্রণে চলে আছে।
রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান জানিয়েছেন, ব্যবসায়ীদের বিনা খরচে পণ্য পরিবহনের জন্য প্রশাসন থেকে লঞ্চ সার্ভিস দেয়া হয়েছে। বাজারে পর্যাপ্ত পণ্য সরবরাহ থাকার পরও কেউ যদি বাজার অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
সম্প্রতি রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান এবং পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান রিজার্ভ বাজার এলাকা পরিদর্শন করেন এবং ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন। এছাড়া তারা রিজার্ভ বাজার লঞ্চঘাটে গিয়ে রাঙামাটি-কাপ্তাই সরাসরি লঞ্চ চলাচলের বিষয়ে খোঁজ খবর নেন।
আগামী ৩ দিনের মধ্যে চট্টগ্রাম রাঙামাটি সড়ক হালকা যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়া সম্ভাবনা রয়েছে। সেনাবাহিনী ও সড়ক ও জনপথ বিভাগ পুরোদমে সড়ক যোগাযোগ পুনস্থাপন করতে কাজ করে যাচ্ছে। আগামী ১ মাসের মধ্যে এই সড়কে ভারী যানবাহন চলাচল শুরু হতে পারে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
রাঙামাটির সা¤প্রতিক দূর্যোগ পরবর্তী বাজারের দ্রব্যমুল্য নিয়ন্ত্রণ ও বাজার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে জেলা প্রশাসন ৪ টি বাজার মনিটরিং সেল ও অভিযোগ কেন্দ্র গঠন করা হয়েছে। এছাড়া রাঙামাটিতে জ্বালানী তেলের সংকট নেই। ৩০ হাজার লিটার তেল ইতিমধ্যে সরবরাহ করা হয়েছে। তেলের পাম্প সমূহে আরো তেল সংগ্রহের প্রক্রিয়া চলছে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।