রাঙ্গামাটিতে সড়ক ও নৌপথ অবরোধ শান্তিপূর্ণ ভাবে পালিত

রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর উপজেলার পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের (পিসিপি) সাধারণ সম্পাদক রমেল চাকমার মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তের দাবিতে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের (পিসিপি) ডাকে রাঙ্গামাটিতে সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও নৌপথে অবরোধ শান্তিপূর্ণ ভাবে পালিত হয়েছে। রোববার (২৩এপ্রিল) ভোর ৬টা থেকে এ অবরোধ শুরু হয়।
সকাল থেকে সড়ক ও নৌপথে কোন দূর পাল্লার যান ছেড়ে যায়নি। তবে শহরে সকালে সীমিত আকারে হালকাযান (অটোরিক্সা) চলাচল করলেও দুপুর গড়াতে এ যাবাহন চলাচাল বেড়ে যায়। দোকান-পাট স্বাভাবিক নিয়মে খোলা ছিলো।

এদিকে অবরোধের সমর্থনে ইউনাইটেড পিপিলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) সমর্থিত পিসিবি’র নেতা-কর্মীরা জেলা শহরে পিকেটিং করতে দেখা না গেলেও কাউখালী উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়ন বাজার এবং জেলা সদরের কুতুকছড়ি এলাকায় পিকেটিং করছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

রাঙ্গামাটি জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. সাফিউল সারোয়ার জানান, শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে পুলিশ সতর্ক ভাবে অবস্থান নিয়েছিলো। যে কোন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ প্রস্তুত ছিলো বলে তিনি জানান। কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি জানান

জানা গেছে, চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারী ভোরে রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর উপজেলার ১৮মাইল কাঠালতলী এলাকায় দুইটি ট্রাকে চাঁদার দাবিতে আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। ওইদিন ব্যবসায়ীরা নানিয়ার থানায় পিসিবি নেতা রমেল চাকমাকে প্রধান আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। ৫ এপ্রিল আইনশৃঙ্খলা নিরাপত্তা বাহিনী নানিয়ারচর উপজেলা বাজার থেকে রমেলকে আটক করে নিয়ে যায়।

নানিয়াচর থানা পুলিশ রমেলকে উন্নত চিকিৎসা দেয়ার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে এবং হাসপাতালে ১৪দিন চিকিৎসা শেষে পিসিবি’র এ নেতা মারা গেলে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিবি) রমেল চাকমার মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবিতে ২৩এপ্রিল সকাল-সন্ধ্যা অবরোধ কর্মসূচি পালন করে। শনিবার (২২এপ্রিল) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, মঙ্গলবার (২৫এপ্রিল) রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘট এবং বুধবার (২৬এপ্রিল) নানিয়ারচর বাজার বয়কট করার ঘোষণা দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।