রাণী ড মাংওয়াংপ্রু’র শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে জনসমাগম নয়

বোমাং সার্কেলের ১৭ তম বোমাংগ্রী উ চ প্রু এর সহধর্মিনী

বোমাং সার্কেলের ১৭ তম বোমাংগ্রী উ চ প্রু এর সহধর্মিনী রাণী ড মাওয়াং প্রু অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় সর্বসাধারণের আগমন বা জনসমাগম না হওয়ার জন্য নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। আগামীকাল ১৮ মে রাণীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হবে ।

আজ রবিবার (১৮ মে) বিকালে বোমাং সার্কেল হেডম্যান এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক টি মং প্রু স্বাক্ষরিত বো:সা:হে:এ/বা-বান-২০২০-০২ স্মারকপত্রে এই তথ্য নিশ্চিত করেন ।

সরকারের জনসমাগম নিষিদ্ধ কথা স্মারকপত্রে উল্লেখ করে লিখা হয়েছে, বিশ্বব্যাপি প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস ভয়াবহ মহামারী আকার ধারণ করেছে । যে কারণে সরকার সব ধরনের জনসমাগম নিষিদ্ধ করেছে এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার লক্ষ্যে দেশের সব নাগরিককে ঘরে থাকার কঠোর নির্দেশ প্রদান করেছে । তাছাড়া এ সময়ে সারাদেশে কোন ধর্মীয় বা সামাজিক আচার অনুষ্ঠানের সমবেত না হতে বলা হয়েছে। এঅবস্থায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের দিক নির্দেশনা মোতাবেক এবং বর্তমান পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে বোমাং রাজার নির্দেশক্রমে প্রয়াত রাণী ড মাংওয়াংপ্রু এ আগামী ১৮ মে শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে সর্বসাধারণের আগমন বা জনসমাগম না হওয়ার জন্য নিরুৎসাহিত করা হলো । তাছাড়া যার যার মৌজায় অন্তর্গত গ্রামগুলোতে সরকারের নির্দেশিত বিধি সর্বাত্ত্বকভাবে মেনে চলার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হল ।

এর আগে একই নম্বরের স্মারকপত্রে লেখা হয়েছে, বান্দরবান ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলার অংশ বিশেষ নিয়ে গঠিত ঐতিহ্যবাহী বোমাং সার্কেল। বোমাং রাজ দরবার সেই ঐতিহ্যের স্মারক । ঐতিহ্যবাহী বোমাং সার্কেলের ১৭ তম বোমাং রাজা, বোমাংগ্রী উ চ প্রু এর সহ ধর্মিনী ড মাওয়াং প্রু গত ১০ মে রবিবার পরোলোক গমন করেন । আগামী ১৮ মে বান্দরবান মারমা বৌদ্ধ মহা শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা হবে ।

স্মারকপত্রে আরো লেখা হয়েছে, বোমাং সার্কেলের মারমা সমাজে ইতিহাস,ঐতিহ্য, কৃষ্টি, সংস্কৃতি এবং প্রথাগত রীতি-নীতি নিয়ে বোমাং রাজ দরবারে উৎসাহী প্রজাদের আগমন ঘটবে এবং ওই অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে প্রত্যন্ত মৌজা থেকে হেডম্যান, কার্বারী, রাজানুগত প্রজাবৃন্দ সমবেত হয়ে রাণীর শেষ দর্শনে পুণ্যলাভের শামিল হবার সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।