রামগড়ে পানিতে ডুবে ভাই বোনের মৃত্যু

খাগড়াছড়ি রামগড়ে পরিত্যক্ত ডোবার পানিতে ডুবে ২ ভাই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হল, রামগড় পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের ফেনীর কুল এলাকার দুবাই প্রবাসী আবু তাহেরের বড় ছেলে জুনাইদ হোসেন (৪) ও একই এলাকার পল্লী চিকিৎসক ডাক্তার আবু তৈয়বের মেয়ে মাহিয়া বিনতে মিতা (৫)। সম্পর্কে এরা চাচাত-জেঠাত ভাই বোন। আজ
বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সন্ধ্যায় এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রতিদিনের মতই শিশুরা বাড়ির আঙ্গিনায় খেলাধুলা করছিল। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলেও জুনাইদ ও মিতা ঘরে না আসায় স্বজনরা খোঁজাখুঁজি শুরু করে। এক পর্যায়ে প্রবাসি আবু তাহেরের বাসা সংলগ্ন নিজস্ব ডোবায় খুঁজতে গেলে ভাসমান অবস্থায় জোনাইদকে পাওয়া যায়। তাকে উদ্ধারের পর ঐ ডোবার পানিতে নেমে মিতার সন্ধান শুরু করে স্বজনরা। অনেক খোঁজার পর ডুবন্ত অবস্থায় মিতাকেও উদ্ধার করা হয়। পরে স্থানীয় চিকিৎসক দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর মোঃ সাহাব উদ্দিন বলেন, নিহত জুনাইদ ও মিতার পিতা আপন ভাই। ধারণা করা হচ্ছে সন্ধ্যা ৬ টা হতে সাড়ে ৬ টার মধ্যে ডোবার পানিতে পরে তারা মারা যায়।

নিহত জুনাইদের বাবা ডা. আবু তৈয়ব বলেন, দীর্ঘদিন নানার বাড়িতে বেড়িয়ে গত বুধবার (৯ জুন) তার ছেলেটা ফিরেছিল। তিনি বলেন, প্রবাসি ছোট ভাই আবু তাহের বাড়ি নির্মাণের জন্য পাশেই মাটি কাটায় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। পরে বৃষ্টির পানি জমে এটি ডোবায় পরিণত হয়। গত কদিনের বৃষ্টিতে ডোবাটি কানায় কানায় জলে পূর্ণ ছিল। এ ডোবায়ই তার কন্যা ও ভাতিজা খেলতে গিয়ে জলে ডুবে মারা যায়।

এই ব্যাপারে রামগড় থানার ওসি (তদন্ত) রাজিব কর বলেন, জলে ডুবে নিহত দুই শিশুর অভিভাবক ও স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের আবেদনের প্রেক্ষিতে মরদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়া স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু হয়েছে।

এদিকে, দুই শিশুর এ মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় পুরো এলাকায় শোকের ছাঁয়া নেমে আসে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।