রোয়াংছড়িতে রাস্তা নির্মানে নিন্মমানের ইট : কাজ বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন

রোয়াংছড়িতে রাস্তা নির্মানে ব্যবহার করা হচ্ছে পাহাড়ের মাটি ও নিন্মমানের ইট
বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়নের রোয়াংছড়ি নতুন পাড়া হতে চাইংগাডং পাড়া রাস্তা নির্মাণে উন্নয়নের নামে ঠিকাদার মো: রেজাউল করিম অতি লাভের আশায় খুব নিন্মমানের ইট ও বালি ব্যবহার করায় কাজ বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নতুন পাড়া হতে চাইংগাডং পাড়ার ভিতরে অলিগলিতে প্রায় ১ কিলোমিটার পাহাড় কেটে ইট সলিং রাস্তা নির্মাণে উপজেলা পরিষদের ত্রাণ ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অধিদপ্তরে অর্থায়নে ৩৪ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে টেন্ডার আহŸান করেন। এতে বান্দরবান নিবাসি মো: রেজাউল করিম নিজ লাইসেন্সে কাজটি পায়। পরে রাস্তার কাজ শুরু থেকে ব্যবহার করেন নিন্মমানের ইট ও বালি। টেন্ডার অনুসারে কাজ করার নিয়ম নীতিগুলো কার্যতালিকায় থাকলেও ঠিকাদার রেজাউল করিম কোন নিয়ম না মেনে নদীর বালির পরিবর্তে রাস্তায় পাহাড়ের বালি মাটি ব্যবহার করছেন।
বিভিন্ন সূত্রে অনিয়মের কথা শুনে উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যবামং মারমা,ভাইস চেয়ারম্যান ক্যসাইনু মারমা,নির্বাহী অফিসার মো: দিদারুল আলম,ত্রাণ ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকতা তর্পন দেওয়ানসহ উপজেলা প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনা স্থালে পরিদর্শন করেন। কাজের মান সন্তোষজনক না হওয়ায় কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। রাস্তা নির্মাণে নিন্মমানের ইটগুলো তুলে মানস্মত ১ নাম্বার ইট ও বালি দিতে ঠিকাদারকে নির্দেশ দেয়া হচ্ছে।
সূত্রে আরো জানা গেছে, শুধু তাই নয়, রাস্তা নির্মাণে গাইড ওয়াল সরূপ ব্যবহার করা হচ্ছে পুরানো ড্রামের টিন ও ছোট ছোট সেগুণ কাঠের খুটি। তাতে দেখা যায়,কাজ শেষ হতে না হতে ভেঙ্গে পড়া উপক্রম হয়েছে। খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে,মো: রেজাউল করিম বান্দরবান ছাত্রলীগের নেতা। জনস্বার্থে রাস্তাটি নির্মাণ করলেও কোন টেকসই না হওয়ায় স্থানীয় জনগনের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে।
ঠিকাদার রেজাউল করিম সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে এব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি দাবি করে বলেন, আমি ভাল মানের ইট ব্যবহার করেছি। কেউ যদি দুই নম্বার ইট ব্যবহার করা হচ্ছে এমন প্রমাণ করতে পারলে যারা কাজ করছে তাদের বিরুদ্ধে এ্যাকশান নিব।
রোয়াংছড়ি সদর ইউপির চেয়ারম্যান চহ্লামং মারমা জানান,চাইংগাতং পাড়ায় রাস্তায় নির্মাণের কাজের নিন্মমানের ইট ব্যবহার করার অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিন্মমানের ইটগুলো জব্দ করেছে এবং ভাল মানের ইট ব্যবহার করতে বলা হয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা ত্রাণ ও বাস্তবায়ন কর্মকর্তার তর্পন দেওয়ান জানান,রোয়াংছড়ি নতুন পাড়া হতে চাইংগাডং পাড়ার গ্রামীন সড়ক উন্নয়নে এইচ বিবি করণে মাধ্যমে রাস্তাটি নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রস্থ ১০ ফুট এবং দৈর্ঘ্য ১ কিলোমিটারের ৩৪ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে রাস্তা নির্মাণের কাজ করা হয়েছে। রাস্তায় উন্নয়নের কাজে টেকসই লক্ষে আমি কাজের নীতিমালাগুলো ঠিকাদারদের সব দিয়েছি। কাজ ভাল না হওয়ায় কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

আরও পড়ুন
1 মন্তব্য
  1. Bablo Hazari বলেছেন

    Joy Tangchangya

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।