রোয়াংছড়ির ৪টি ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীরা এগিয়ে

শেষ সময়ের ব্যস্ত প্রচারণা

বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের ৯জন চেয়ারম্যান প্রার্থী শেষ সময়ের প্রচার ও প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন।

জানা যায়, ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়ছেন ১নং রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মেহ্লাঅং মারমা, স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীক নিয়ে লড়ছেন উমংসিং মারমা এবং চশমা প্রতীক নিয়ে লড়ছেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সাহ্লামং মারমা। রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়নে ৩জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হলেও মূলত: প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হিসেবে আছেন স্বতন্ত্র ও আনারস প্রতীকের প্রার্থী’র উমংসিং মারমা সাথে নৌকা প্রার্থী’র মেহ্লঅং মারমা।

২নং তারাছা ইউনিয়নে প্রার্থী আছেন ২জন। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী চশমা প্রতীকে লড়ছেন উনুমং মারমা এবং বর্তমান চেয়ারম্যান উথোয়াইচিং মারমা লড়ছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকে। ৩নং আলেক্ষ্যং ইউনিয়নে স্বতন্ত্র ও আনারস প্রতীকে লড়ছেন তরুণী প্রার্থী ও বেক্ষ্যং নিন্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষিকা মাশৈখিং মারমা এবং এলাকার জুড়ে পরিচিত মুখ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ৩নং আলেক্ষ্যং ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে দুই দুবার নির্বাচিত ও জনসেবক বর্তমান চেয়ারম্যান বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যা। তৃতীয় বারের মতো চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন। এলাকার বাসীদের ধারণা করছেন এবারও বিপুল ভোটের নির্বাচিত হবেন তিনি।

পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুরের হাতকে শক্তিশালী করার প্রত্যয়ে কাজ করছেন বলে সাধারণ ভোটাদের কাছে পরিচিত মুখ তিনি। এর পাশাপাশি জেলা আওয়ামী লীগের মনোনীত ৩য় বারের মতো নৌকা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও আলেক্ষ্যং ইউপি বর্তমান চেয়ারম্যান ও সরকারী-বেসরকারী একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সভাপতি বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যা। তার সাথে লড়ছেন আনারস প্রতীক নিয়ে একই ইউনিয়নের সাধারন মানুষের মনোনীত তরুণী প্রার্থী মাশৈখিং মারমা।

সূত্রে জানা গেছে জনসাধারনের সুখে দু:খে, আপদে বিপদে পাওয়া যায় সাধারন পরিবারের সদস্য বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যাকে। জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন তৃণমূল পর্যায়ে দলীয় নেতারা বর্তমান চেয়ারম্যান জননেতা বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যাকে নৌকা প্রতীকে বিজয় সুনিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

আলেক্ষ্যং এলাকায় স্থানীয়রা জানান, বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যা ১৯৯৫ সালে ছাত্র জীবনের রাজনীতিতে যোগ দেন। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সুবাদে ২০১১ ও ২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে বর্তমানে চেয়ারম্যান পদে আছেন। তিনি পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি নিদের্শনায় উন্নয়নের কাজে সহায়ক হিসেবে কাজ করে আসছেন। আওয়ামী লীগের দীর্ঘ বছর ধরে রাজনীতি কালে তৃনমূলের নেতাদের সাথে কাজ করে ২০১১ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ঘড়ি প্রতীক দিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। ফের ২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীক তাঁর হাতে তুলে দেন। তিনি নৌকা প্রতীকে বিপুল ভোটের নির্বাচিত হয়ে জনগণকে সেবা দিয়ে আসছেন।

এদিকে রোয়াংছড়ি আওয়ামী লীগের সাবেক সফল সভাপতি কাঞ্চনজয় তঞ্চঙ্গ্যাও দলীয় প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে এলাকায় অবস্থান করে নিরলস ভাবে কাজ করে যাছেন। এর সাথে বান্দরবান জেলা ছাত্রলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, ও মহিলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা উপজেলাটিতে অবস্থান করে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের জয়ী করতে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে আসছেন।

চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, এলাকার সার্বিক উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে প্রচেষ্টা করি। ফলে এলাকা বাসীর আর্শীবাদে তৃতীয় বারের মতো আমি এই নির্বাচনে বিপুল ভোটের বিজয়ী হবো।

অন্যদিকে ৪নং নোয়াপতং ইউনিয়নেও ৩জন প্রার্থী জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) থেকে স্বতন্ত্র ও আনারস প্রতীকে লড়ছেন, তিন বারের নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান সম্ভু কুমার তঞ্চঙ্গ্যা, স্বতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীকে নিয়ে লড়ছেন মংপু মারমা এবং আওয়ামী লীগের মনোনীত ও নৌকা প্রতীকে প্রার্থী চনুমং মারমা।

নোয়াপতং ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসীদের সূত্রে জানা গেছে, চনুমং মারমা বিগত ২০১৬ সালে ইউপি নির্বাচনে একবার পরাজিত হওয়ায় ভোটারা নৌকা প্রতীকের প্রার্থী চনুমং মারমাকে বিজয়ী করতে এলাকার সাধারণ মানুষ ও তৃণমূল পর্যায়ে নেতা কর্মীরা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।