লামার আজিজনগরের চেয়ারম্যান কন্যা ফারহানা’কে নিয়ে পটিয়ায় তোলপাড় !

গত বছরের ১৭ এপ্রিল চট্টগ্রামের চকবাজার এর একটি রেস্টুরেন্টে প্রেমিক সাফায়েত ফাহিম এর জন্মদিন পালন করছে ফারহানা বেগম
“এই মেয়েটি আমার সাথে কথা না বলে একদিনও ঘুমাতে যাইতো না, আমি ফোন রিসিভ না করলে পাগলের মতো আমার সব আত্মিয় স্বজনকে ফোন দিতে থাকতো, সেই তুই কেমনে ১দিনে পরিবর্তন হইলি”। ফেসবুকে এই ধরণের স্ট্যাটস দিয়ে নিজেদের সম্পর্কের খবর জানান দেন বান্দরবানের লামা উপজেলার আজিজনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনের কন্যা ফারহানা বেগমের এর প্রেমিক সাফায়েত ফাহিম।
আমি জানি, কোনো একদিন অপর প্রান্ত থেকে কান্নাজড়িত কণ্ঠে আমার কাছে একটি ফোন আসবেই। তখন বলবে, আমি তোমার। বহু কষ্টে বিশাল ইতিহাসের কিছু অংশ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তুলে ধরেছেন সেফায়েত ফাহিম নামের এক প্রেমিক। গোপনে প্রেমিকার বিয়ে হবার পর নতুন বর কফিল উদ্দিন গত শনিবার সন্ধ্যায় একটি প্রাইভেট গাড়ি নিয়ে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার আরাকান মহাসড়ক হয়ে লোহাগাড়া উপজেলার গ্রামের বাড়ি যাচ্ছিলেন। এ সময় প্রেমিকাকে শেষবারের মত ৫ মিনিট দেখার ইচ্ছে ছিল প্রেমিক ফাহিমের। সেজন্য পটিয়া সদরের ইন্দ্রপুল এলাকায় পৌঁছালে প্রেমিক ফাহিম দলবল নিয়ে বরের গাড়িটিকে তাড়া করে। বরের গাড়ি আটকের বিষয়টি পটিয়া থানা পুলিশকে জানানো হলে পুলিশ প্রেমিক-প্রেমিকা ও বরকে থানায় নিয়ে মোট চারজনকে আটক করে থানা হাজতে আটকে রাখে, পরে তাদের ছেড়ে দেন।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বান্দরবানের লামা উপজেলার আজিজনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনের কন্যা ফারহানা বেগমের সঙ্গে একই উপজেলার সৌদি প্রবাসী কফিল উদ্দিনের আকদ্ গত শুক্রবার সম্পন্ন হয়। কিন্তু চট্টগ্রাম মহসিন কলেজের ছাত্র ও চন্দনাইশের বাসিন্দা সেফায়েত ফাহিমের সঙ্গে ফারহানার প্রেমের সম্পর্ক দীর্ঘ দুবছরের বেশি সময় ধরে। গোপনে প্রেমিকার বিয়ে হবার খবর পেয়ে সেফায়েত ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন।
প্রেমিক সাফায়েত ফাহিম এর সাথে ফারহানা বেগম
আরো জানা গেছে, গত শুক্রবার আকদ্ অনুষ্ঠান হলে শনিবার সন্ধ্যায় বর স্ত্রীকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে ফিরছিলেন। গাড়ি নিয়ে তারা চট্টগ্রামের পটিয়া এলাকায় পৌঁছালে প্রেমিক সেফায়েত ও তার লোকজন গাড়ি তাড়া করে প্রেমিকাকে গাড়ি থেকে নামানোর চেষ্টা করে। পরে পুলিশ খবর পেয়ে প্রেমিক, বর ও প্রেমিকাকে থানায় নিয়ে যায়। অবশ্য রাতে মুচলেকা নিয়ে পুলিশ প্রেমিককে ছেড়ে দিয়ে বরের কাছে আলোচিত প্রেমিকা ফারহানাকে তুলে দেয়।
এই ব্যাপারে পাহাড়বার্তা থেকে লামা উপজেলার আজিজনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনের সাথে একাধিকবার ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও ফোনে সংযোগ পাওয়া যায়নি।
গত রোববার সকালে প্রেমিক সেফায়েত ফাহিম তার ফেসবুকে লিখেছেন, ২০১৭ সালের ১২ জুলাই তাদের সম্পর্কের শুরু। দুবছর ১৪ দিনের একটি প্রেমের সম্পর্ক যেন হাইজাক করা হয়েছে। তবে আমি জানি, কোনো একদিন অপর প্রান্ত থেকে কান্নাজড়িত কণ্ঠে আমার কাছে সে ফোন করবেই।
প্রেমিক সেফায়েত ফাহিম পাহাড়বার্তাকে বলেন, ফারহানার মা রেনুয়ারা বেগম মেয়ের জীবনটা নষ্ট করে দিয়েছে,জোর করে বিয়ে দিয়ে। তিনি আরো বলেন,ফারহানার কাছ থেকে ১১টি মোবাইল নিয়ে নেই,তারপরও ১দিনের বেশি কথা বলে রাখতে পারেনি। তিনি আরো জানান, ঘটনার পর ফারহানার বর উফিল উদ্দিন আমাকে ফোন করেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি খুব বিব্রত বোধ করেন, তিনিও আমাদের এই সম্পর্কের কথা জানতেনা।
পটিয়া থানার উপপরিদর্শক নাদিম মাহমুদ জানিয়েছেন,গত শনিবার রাতে অপহরণ করার অভিযোগ পেয়ে পুলিশ একটি প্রাইভেট গাড়িসহ ৪জনকে আটক করে। পরে রাতে পুলিশ জানতে পারে প্রেমিক-প্রেমিকার ঘটনা,তাই অভিযোগ না করার কারনে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।