লামার কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির পরিদর্শক নুরচানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

দুদক লগো

সঞ্চয় ও ঋণ জালিয়াতি করে টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে বান্দরবানের লামা উপজেলার কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি লিমিটেডের (ইউসিসিএ) বরখাস্তকৃত পরিদর্শক মো. নুরচানের (৪২) বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়-২, চট্টগ্রাম উপসহকরী পরিচালক মো. শরীফ উদ্দিন বাদী হয়ে মামলাটি করেন।
তবে মামলার তিন মাস আগেই প্রবাসে পাড়ি দিয়েছেন আসামি মো. নুরচান। তিনি বান্দরবানের লামা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড টিটিএন্ডডিসি গ্রামের মৃত জাফর আলীর ছেলে।

মামলার অভিযোগে দুদক উল্লেখ করে, ২০০৫ সালের ১ ডিসেম্বর পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের নিয়ন্ত্রণাধীন লামা উপজেলার কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি লিমিটেডের পরিদর্শক হিসেবে যোগদান করেন মো. নুরচান। তার মূল কাজ ছিল মূলত গ্রামপর্যায়ে কৃষক-কৃষাণী, বিত্তহীন পুরুষ-মহিলাদের নিয়ে সমিতি গঠন ও সঞ্চয় আদায় ও ঋণ বিতরণের কাজ। নিয়ম অনুযায়ি তিনি ওই সমিতির টাকা সংগ্রহ করে জমা দেবেন উপজেলা কৃষি ব্যাংকে।

কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে সঞ্চয়, ঋণ ও সংগ্রহকৃত টাকা ব্যাংকে জমা না দেয়ায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলে তার চাকরিতে যোগদান পূর্বেকার ২৭টি সমিতি। অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলার পল্লী উন্নয়ন বোর্ড নুরচানের বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্তে ২৭টি সমিতির কাছ থেকে ১০ লাখ ৩৫ হাজার ৩৬৩ টাকা আত্মসাতের প্রমাণ পাওয়া যায়।

এ ঘটনায় ২০১৮ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের বার্ষিক সাধারণ সভায় তাকে পরিদর্শক পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়-২ এর উপ পরিচালক মাহাবুবুল আলম।

তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, নুরচান ১ ডিসেম্বর (২০০৫) সমবায় পরিদর্শক হিসেবে চাকরি নেন। এরপর থেকে ওই এলাকায় নতুন কোনো সমিতি গঠন করা হয়নি। পূর্বেকার ২৭টি সমিতির কাছ থেকে ১০ লাখ ৩৫ হাজার ৩৬৩ টাকা আত্মসাতের ঘটনা প্রমাণিত হওয়ায় পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের সভায় তাকে ওই পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দণ্ডবিধি ৪০৯/৪২০ ধারাসহ ১৯৮৭ সালের দুর্নীতি দমন প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় তার বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।