লামায় ইউপি সদস্যকে লাঞ্চিত করলেন সচিব !

বান্দরবানের লামায় এক ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যকে পরিষদে দায়িত্বরত সচিব কর্তৃক শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার বিকাল ৪টার দিকে উপজেলার সরই ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী মো. নাছির উদ্দিন ইউনিয়ন পরিষদের ৬নং ওয়ার্ড সদস্য।
অভিযোগে জানা যায়, সম্প্রতি মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আওতাধীন দু:স্থ নারীদের মাঝে মাতৃত্বকালীণ ভাতা প্রদানের জন্য নামের তালিকা চাওয়া হয়। ইউনিয়নের অন্যান্য ওয়ার্ডের ন্যয় ৬নং ওয়ার্ড সদস্য মো. নাছির উদ্দিনের কাছ থেকেও ২টি গর্ভবর্তী নারীর নাম চাওয়া হয়। সে মোতাবেক ওয়ার্ড সদস্য নাছির উদ্দিন নামসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সচিবের নিকট জমা দেন। কাগজপত্র জমা দেওয়ার সময় সচিব মো. মুছা ওয়ার্ড সদস্যের কাছ থেকে ৪হাজার টাকা দাবী করেন। টাকা না দেওয়ায় সচিব ওই দুইটি নাম তালিকায় অর্ন্তভুক্ত করেনি। সোমবার বিকালে তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে সচিব ক্ষিপ্ত হন। এক পর্যায়ে সচিব ও উপস্থিত দফাদার মোবারক আলী সংঘবদ্ধ হয়ে নাছির উদ্দিনকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করেন।
লাঞ্চিত করার বিষয়টি অস্বীকার করে সচিব মো. মুছা বলেন, ওয়ার্ড সদস্য নাছির উদ্দিন আমাকে নাম না দেওয়ায় তালিকায় ওই দুই নারীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা সম্ভব হয়নি। কিন্তু তিনি অকারণে ক্ষিপ্ত হয়ে পরিষদের মূল্যবান কাগজপত্র ছিঁড়ে ফেলার চেষ্টা করলে; আমি বাঁধা দিয়েছি মাত্র।
সরই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো, ফরিদ উল আলম বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। ইউপি সদস্য ও সচিবের মধ্যকার অপ্রীতিকর ঘটনাটি অত্যন্ত দু:খ জনক।
এ বিষয়ে লামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খিনওয়ান নু বলেন, ঘটনাটি আমি মৌখিকভাবে অবহিত হয়েছি, লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।