লামায় নতুন বই পেয়ে উচ্ছ্বাসিত শিক্ষার্থীরা

শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ‘ এ শ্লোগানকে মূল প্রতিপাদ্য করে সারা দেশের ন্যায় এ উপজেলায়ও আজ বুধবার (১ জানুয়ারি) সকাল থেকে স্কুল ও মাদরাসার কোমলমতি শিক্ষার্থীর হতে তুলে দেয়া হয় নতুন পাঠ্য বই।

প্রথম শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত বিনামূল্যের এসব বই একযোগে উপজেলার ১০১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২৭ হাজার ৪৮জন শিক্ষার্থীর হাতে ১ লাখ ১৫হাজার ৩২৮টি, ২৯টি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ভোকেশনাল, মাদরাসার ইবতেদায়ী এবং দাখিল শ্রেণির ৮ হাজার ৯০০শিক্ষার্থীর হাতে ১লাখ ৫৫ হাজার ৫০টি বই তুলে দেয়া হয়। গত ১১ বছর ধরে প্রতিবারই ১ জানুয়ারি নতুন বই শিশুদের হাতে তুলে দেয়া হয়। দিনটি বই উৎসব হিসেবে পালন করে আসছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো।

সরজমিন কয়েকটি বিদ্যালয় প্রাঙ্গন ঘুরে দেখা যায়, সন্তানদের সঙ্গে অভিভাবকরাও আসেন বই নিতে। কথা আর আলাপচারিতার মধ্য দিয়ে হাস্যোজ্জল হয়ে ওঠে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন।

এ সময় লামা মডার্ন হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মংজাই প্রু মার্মা ও ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী জান্নাতুল নাঈমার বাবা মো. সাহাব উদ্দিন বলেন, সরকারের এই উদ্যোগের ফলে যারা বিত্তবান, মধ্যবিত্ত, হতদরিদ্র সবাই এককাতারে এসেছে। অনেকে বছরের এই সময় হয়তো সব বই কিনতে পারতো না, কিন্তু এখন সবাই বিনামূল্যে সরকারের পক্ষ থেকে বই পাচ্ছে।

চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে চলা এ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী মুখিং মার্মা ও ফারজানা আক্তার জানায়, নতুন দিনে নতুন বই পাওয়াটা কতোটা আনন্দের তা বলে বোঝানো যাবে না। নতুন বই হাতে পাওয়ার জন্য কয়েকদিন আগে থেকেই মনের ভেতর আলাদা একটি আনন্দ কাজ করছিলো। তাই সকালে ঘুম থেকে উঠেই বিদ্যালয়ের আসার জন্য তৈরি হয়েছি। এখন বই পেলাম।

উৎসবের দিন নুনারবিল সরকারী মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. সাইফুদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বই বিতরন উদ্ভোধন করেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা জামাল। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহেদ সরোয়ারের সঞ্চালনায় এতে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ফাতেমা পারুল, নির্বাহী অফিসার নূর এ জান্নাত রুমি, পৌরসভা মেয়ল মো. জহিরুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জাহেদ উদ্দিন, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গাইছুল আজম, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তপন কুমার চৌধুরী প্রমুখ বিশেষ অতিথি ছিলেন।

পরে পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ফাতেমা পারুল পৌরসভা এলাকার ১১টি প্রাথমিক, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় উপস্থিত হয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বই বিতরণ উদ্বোধন করেন।

এ বিষয়ে নুনারবিল সরকারী মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহেদ সরোয়ার বলেন, বছরের প্রথম দিনেই আনুষ্ঠানিকভাবে বিদ্যালয়ের ৫৭০জন শিক্ষার্থীর হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয়েছে। এছাড়া হলিচাইল্ড পাবলিক স্কুল ও লামা মডার্ন স্কুলের শিক্ষার্থীদের হাতে শতভাগ বই তুলে দেয়া হয়েছে বলে জানান, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. তানফিজুর রহমান ও চিং মং মার্মা।

এ বিষয়ে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ফাতেমা পারুল জানান, বছরের প্রথম দিনে বই পেয়ে পড়ালেখায় আগ্রহ বাড়ছে সকলের সন্তানদের, বাড়ছে ভালো ফলাফল ও বৃত্তির সংখ্যা। তাই অভিভাবকরাও নিশ্চিন্তে সন্তানদের পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পারছেন।

এদিকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. গাইছুল আজম বলেন, চাহিদা অনুযায়ী শতভাগ বই সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে দেয়া হয়েছে। একযোগে প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষার্থীদের হাতেও বই তুলে দেয়া হয়।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।