লামায় পাথর উত্তোলনের বিরুদ্ধে অভিযান : ৫ লক্ষাধিক ঘনফুট পাথর জব্দ

লামায় নির্বিচারে উত্তোলনকৃত পাথরের স্তুপ পরিদর্শনে কর্মকর্তারা
বিভিন্ন পত্রিকায় ‘লামায় নির্বিচারে পাথর উত্তোলনে মহোৎসব’ শীর্ষক শীরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে বান্দরবানের লামা উপজেলায় নির্বিচারে পাথর উত্তোলনের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে উপজেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর। বুধবার ও গত মঙ্গলবার -এ দুই দিন উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের বনপুর, ইয়াংছা ও কাঁঠালছড়া ত্রিপুরা পাড়ায় এ অভিযান চালানো হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ-জান্নাত রুমির নেতৃত্বে পরিচালিত অভিযানে সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইশরাত সিদ্দিকা, পরিবেশ অধিদপ্তরের বান্দরবান সহকারী পরিচালক এ.কে.এম সামিউল আলম কুরসী ও পরিদর্শক নাজনীন সুলতানা নীপা অংশ গ্রহণ করেন। এতে সহযোগিতা করেন, থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. আশরাফসহ সঙ্গীয় সদস্যরা। অভিযানে মজুদকৃত ৫ লক্ষাধিক ঘনফুট পাথর জব্দ দেখানো হয় বলে জানা গেছে।
পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক একেএম সামিউল আলম কুরসী বলেন, গত দুই দিনে সরজমিনে নির্বিচারে পাথর উত্তোলনের চিত্র, পরিবেশের ক্ষতিরমাত্রা ও মজুদকৃত পাথরের স্তুপ পরিদর্শন করেছি। স্থানীয়দের দেয়া তথ্যমতে, চলতি মৌসুমে কমপক্ষে ১০ থেকে ১২ লক্ষ ঘনফুট পাথর পাচার করেছে ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে ইয়াংছা ও বনপুর অংশে আরো ৫ লক্ষাধিক ঘনফুট পাথর মজুদ রয়েছে। এ কাজে স্থানীয় ও বহিরাগত ২০ থেকে ২৫জন ব্যক্তি জড়িত। এসব ব্যক্তির বিরুদ্ধে পরিবেশ আইনে নিয়মিত মামলার প্রস্তুতি চলছে।
অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমি বলেন, অবৈধভাবে মজুদকৃত পাথর যেন রাতার আধাঁরে পাচার হয়ে না যায়; সে ব্যাপারে আমরা সজাগ রয়েছি।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।