লামায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ভাগিনার মাথা ফাঁটালেন মামা !

বান্দরবানের লামা উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ এক পরিবারের ৩ জন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন,শফি আলম (৫৫), শফি আলমের স্ত্রী পারভীন বেগমা (৪৫) ও মা আয়না বেগম (৭৫)। শুধু তাই নয়, ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করতে প্রতিপক্ষ আপন ভাগিনার মাথা ফাটিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করারও অভিযোগ ওঠেছে। আজ মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) ভোরে পৌরসভা এলাকার হরিণঝিরি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মিথ্যা অভিযোগ থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন শফি আলম।

অভিযোগে জানা যায়,লামা পৌরসভা এলাকার হরিণঝিরি গ্রামের বাসিন্দা মৃত ফজু মিয়ার ছেলে শফি আলমের (৫৫) নামে ২৯৩নং ছাগল খাইয়া মৌজার ৪২২নং হোল্ডিং মূলে ৪৪শতক ও ১৬৮নং খতিয়ন মূলে ৭০ শতক জমি রয়েছে। ক্রয় সূত্রে মালিক হয়ে২০০৬ সাল থেকে শফি আলম ওই জমি ভোগ করে আসছেন। সম্প্রতি পাশের বাসিন্দা মৃত কালু মিয়ার ছেলে ওসমান গণি, নুরুল আলম এবং মেয়ে রুছিয়া বেগম ওই জমি তাদের বলে দাবী করে বিভিন্নভাবে জবর দখলের চেষ্টা করেন। এ নিয়ে শফি আলম উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা করেন। আগামী ৬ নভেম্বর মামলাটির শুনানির দিন ধার্য্য আছে।

মামলাটি ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করার জন্য আজ মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৩টার দিকে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে প্রতিপক্ষ ওসমান গণি, নুরুল আলম, রুছিয়া বেগম ও মো. ইছহাকসহ আরো ২-৩জন সংঘবদ্ধ হয়ে শফি আলমের পরিবারের ওপর হামলা করেন। এতে শফি আলম, শফি আলমের স্ত্রী পারভীন বেগমা ও মা আয়না বেগম আহত হন। এক পর্যায়ে শফি আলমগংদের ফাঁসাতে নিজের ভাগিনা ইছাহাকের (১৯) মাথা ফাঁটিয়ে দেন মামা ওসমান গণিসহ অন্যরা। পরে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন স্থানীয়রা।

হামলার ঘটনায় আহত শফি আলম বলেন,মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ ও সার্ভেয়ার সরেজমিন পরিদর্শন করে বিরোধীয় জমি আমার বলে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। এতে ওসমান গনি ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের ওপর হামলা করেন। তিনি বলেন, ওসমান গণিগংদের কোন বৈধ কাগজপত্র নেই। তারা অন্য জায়গার একটি হোল্ডিং দেখিয়ে আমাদের ওপর পরিকল্পিতভাবে মামলা হামলা করে চলেছে।

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিন পরিদর্শনে গেলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় অনেকে জানান, শফি আলমগং কর্তৃক ইছহাকের মাথা ফাটানো ঘটনা তারা দেখেন নি। অভিযোগ অস্বীকার করে অভিযুক্ত ওসমান গণি ও রুছিয়া বেগম বলেন,শফি আলমগং হামলার সময় লাঠি দ্বারা আঘাত করে ইছহাকের মাথা ফাঁটিয়ে দিয়েছেন।
লামা পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাবিল মিয়া বলেন, শফি আলম ও ওসমান গণির মধ্যে তিন-চার মাস আগে থেকে জমি নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়। এর জের ধরে ওসমান গণিগং প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজের ভাগিনার মাথা ফাঁটানোর মত জঘন্য কাজ করেছেন।

এ বিষয়ে লামা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মো.আমিনুল হক বলেন, হামলার ঘটনা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।