লামায় মুক্তিযোদ্ধার ওপর হামলা

বান্দরবানের লামা উপজেলায় চারদিন ধরে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছেন আবদুস ছাত্তার (৭২) নামের এক বৃদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা। জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে আপন ভাতিজা ও ভাবীর হামলায় গুরুতর জখম হন তিনি। উপজেলার আজিজনগর ইউনিয়নের চিউনী সৌরভপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

সূত্রে জানা যায়, মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তারকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানিসহ সুযোগ পেলে প্রাণে হত্যা করবে বলেও হুমকি দেন ভাতিজা মফিজুল মোল্লা। এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা নিজেই বাদী হয়ে মৃত বড় ভাই আবুল মোল্লার স্ত্রী হাছিনা আক্তার (৫৮), ভাতিজা মো. মফিজুল মোল্লা (৩৮) ও তার স্ত্রী পারভীন আক্তারের (৩০) বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।

অভিযোগে জানা যায়,মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তারের নামে লামা উপজেলার আজিজনগর ইউনিয়নের চাম্বী মৌজার ১৩০৫, ১২৮৪, ১২৮৯, ১২৯১, ১৩০৮ হোল্ডিং মূলে এক একর তৃতীয় শ্রেণীর জমি আছে। এ জমিতে ফলজ বনজ বাগান ও বসতঘর সৃজন করে দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে ভোগ করে আসছেন মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তার ও তার পরিবারের সদস্যরা। গত দুই বছর ধরে মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তারের ভাই মৃত আবুল মোল্লার ছেলে মো. মফিজুল মোল্লা এই জমি তার বলে দাবী করেন আসছেন। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে বিভিন্ন সময় কথাকাটাকাটি হয়।

এক পর্যায়ে গত রবিবার সকাল ৯টার দিকে বাগান পরিচর্যা করতে গেলে মো. মফিজুল মোল্লাসহ অন্যরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে লাঠি দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তারের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্নকভাবে আঘাত করেন। খবর পেয়ে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে আহত মুক্তিযোদ্ধাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন স্বজনেরা। পরদিন অভিযুক্ত ভাতিজা, ভাবী ও ভাতিজার স্ত্রীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তার।

লামা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক মো. শফিউর রহমান মজুমদার বলেন, মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তারের মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাতœকভাবে আঘাত করা হয়েছে।

আজিজনগর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য এম ডি রোকন উদ্দিন বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধাকে এভাবে আঘাত করা খুবই দু:খ জনক। বিরোধীয় জমি দীর্ঘ বছর ধরে মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তারের দখলে। আমরা একাধিকবার বৈঠক বসেও মফিজুল মোল্লার উৎশৃঙ্খলতার কারণে বিরোধটি মিমাংশা করতে পারিনি।

এ বিষয়ে লামা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অপ্পেলা রাজু নাহা জানান, এ ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা আবদুস ছাত্তার বাদী হয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। আসামী গ্রেফতারে মাঠে কাজ করছে পুলিশ।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।