লামায় সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীর আত্মহত্যা

বান্দরবানের লামা উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের সাপমারা ঝিরি এলাকায় বাল্য বিবাহ ঠেকাতে ১৩ বছরের এক মাদ্রাসার ছাত্রী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। শনিবার বিকালে বসতঘরের ছাদের বিমের সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ইয়াছমিন আক্তার আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে। লামা থানার পুলিশের পরিদর্শক জাহেদ নুর আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
মাদ্রাসার ছাত্রীর মা শফিকা বেগম(৩৯) জানিয়েছেন, তিন ভাই বোনের মধ্যে ইয়াছমিন ২য় সন্তান। পরিবারের একমাত্র কন্যা সন্তান সে। সে লামা ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা হতে সপ্তম শ্রেণীর বার্ষিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন। শুক্রবার সকালে লামা পৌরসভার টিটিএন্ডডিসি এলাকার আমির হোসেনের ছেলে ফারুক হোসেনের সাথে বিবাহ দেয়ার জন্য প্রস্তাব নিয়ে ৩জন তাদের বাসায় যায়। এসময় মেয়ের মা শফিকা বেগম বাড়িতে ছিলেননা। বাড়িতে এসে বিয়ের প্রস্তাবের বিষয়টি জানতে পারেন। ইয়াছমিন আক্তার বিয়ের প্রস্তাবের খবর শুনে প্রতিবাদ করেন। এক পর্যায়ে শনিবার বিকেলে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। তার পিতা নুর মোহাম্মদ রাঙ্গামাটিতে ও বড় ভাই মোঃ ইসমাইল হোসেন চট্টগ্রামে দিন মজুরের কাজ করেন।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।