লামায় ১৪ দিনেও উদ্ধার হয়নি নিখোঁজ দুই বোন ইয়াছমিন ও মুক্তা

বান্দরবানের লামা উপজেলায় মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজের ১৪ দিনেও উদ্ধার হয়নি এক পরিবারের দুই কন্যা শিশু। উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ি বমু খালের বাতেন টিলা এলাকার একটি বিলে মাছ ধরতে গিয়ে গত ৩০ আগস্ট নিখোঁজ হয় তারা। নিখোঁজ দুই শিশুর নাম ইয়াছমিন বেগম (১১) ও মুক্তা বেগম (৯)। উভয়েই বাতেন টিলা এলাকার মনির আহমদের মেয়ে ও ক্রংতং পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী।

এদিকে আজ বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকাল পর্যন্ত নিখোঁজ দুই শিশুর উদ্ধার কিংবা কোন খোঁজ মিলেনি বলে জানান স্বজনেরা।

নিখোঁজ দুই শিশুর পিতা মনির আহমদ বলেন, গত ৩০ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে বমু খাল পার হয়ে বাড়ির পাশের একটি বিলে ইয়াছমিন ও মুক্তা মাছ ধরতে যায়। দীর্ঘক্ষণ বাড়ি না ফেরার কারণে আমরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি শুরু করি। কোথাও খোঁজ না পেয়ে শেষে স্থানীয় প্রশাসনকে জানাই। ধারণা করা হচ্ছে, বাড়ী ফেরার সময় বমুখাল পাড়ি দিতে গিয়ে স্রোতের টানে ভেসে গেছে ইয়াছমিন ও মুক্তা। ১২ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।

লামা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স’র স্টেশন কর্মকর্তা সাফায়েত হোসেন বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে আমরা নিখোঁজ দুই শিশুকে উদ্ধারে অভিযানে চালাই। একদল কর্মী ঘটনাস্থল ও আশপাশের এক কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত তল্লাশী চালিয়েও শিশু দুইটির কোন খোঁজ পাইনি।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে লামা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অপ্পেলা রাজু নাহা বলেন, পুলিশের একটি টিমও নিখোঁজ শিশু দুইটির উদ্ধার কাজে ফায়ার সার্ভিসকে সহায়তা করেছে,কিন্তু কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।