শান্তিচুক্তি করে মানুষকে যেসব স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন তা পূর্ণতা লাভ করেছে : বীর বাহাদুর

বান্দরবানের থানচি উপজেলায় প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি
জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টির ফলে বান্দরবান পার্বত্য জেলার বিভিন্ন উপজেলা ইউনিয়ন থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চল উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে। ১৯৯৭ সালের ২রা ডিসেম্বর জননেত্রী শেখ হাসিনা আলাপ আলোচনার মাধ্যমে শান্তি চুক্তি করে পাহাড়ের মানুষকে যেসব স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন আজ তা পূর্ণতা লাভ করেছে।
আজ শনিবার সকালে বান্দরবানের থানচি উপজেলায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের অর্থায়নে থানচি উপজেলায় বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন কালে এসব কথা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।
এসময় তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের একমাত্র কোন রাষ্ট্রপ্রধান বা সরকার প্রধান এসে থাকেন, তাহলে তিনি একমাত্র সকলের প্রিয় জননেত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা থানচিতে এসেছেন। ২০১২ সালের ১৭ নভেম্বর জননেত্রী শেখ হাসিনা থানচিতে পা রাখার সাথে সাথে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় পরির্বতনের ছোয়া লেগেছে দূর্গম থানচি উপজেলায়।
‘শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ এই শ্লোগানকে সামনে নিয়ে বান্দরবানের থানচি উপজেলার বলিপাড়ায় ভিজিডি ও খাদ্য বান্ধব কর্মসুচির আওতায় দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে চাউল বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুপুরে বলিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে ১০ টাকা কেজি দরে ৩৪০ পরিবারের মধ্যে এই পুষ্টি চাউল বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।
এর আগে বীর বাহাদুর পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নে আটাশ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা ব্যয়ে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পাঠাগার ও শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে বাষট্টি লক্ষ টাকা ব্যয়ে বলিপাড়া বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন এবং পার্বত্য জেলা পরিষদের বাস্তবায়নে বিরাশি লক্ষ টাকা ব্যয়ে বলীপাড়া বৌদ্ধ বিহারে ছাত্রাবাস ও ধর্মদেশনা ভবণ নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তরের উদ্বোধন করেন।
এসময় অনুষ্ঠানে বলিপাড়া বিজিবির জোন কমান্ডার লে: কর্ণেল মো: হাবিবুর হাসান পিএসসি, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: আবুল কালাম, অতিরিক্ত পুুলিশ সুপার মো:কামরুজ্জামান, থানচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আরিফুর হক মৃদুল, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বান্দরবান ইউনিটের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বিন মোহাম্মদ ইয়াছির আরাফাত, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য ক্য সা প্রু, সদস্য সিংইয়ং ম্রো, সদস্য ফিলিপ ত্রিপুরা, সদস্য থোয়াইহ্লা মং র্মামা, সদস্য তিংতিং ম্যা, পার্বত্য জেলা পরিষদের উপ-সহকারী প্রকৌশলী থোয়াই চ মং মার্মা, থানচি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মার্মা সহ প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।