শিক্ষার্থীদের মনের ভীতি কাটাতে প্রশাসনকে আরো সক্রিয় হতে হবে : কৃত্তিকা ত্রিপুরার স্মরণ সভায় বক্তারা

কৃত্তিকা ত্রিপুরার স্মরণ সভা
খাগড়াছড়িতে উপর্যুপরি শিশু ও নারী ধর্ষণ এবং হত্যাকান্ডের ফলে জনমনে নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ ধর্ষণের পর নির্মমভাবে হত্যার শিকার দীঘিনালার স্কুলছাত্রী কৃত্তিকা ত্রিপুরার ঘটনাটি মানুষ কোনভাবেই ভুলতে পারছে না। নৃশংস এই এই ঘটনার ফলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মনের ভীতি কাটাতে প্রশাসনকে আরো সক্রিয় হতে হবে। যতো দ্রুত সম্ভব অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি বিধানও জনগণের দাবি।
আজ শুক্রবার দুপুরে কৃত্তিকার বাড়িতে তার পারলৌকিক শ্রাদ্ধক্রিয়া উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণ সভায় ত্রিপুরা সমাজের বিশিষ্ঠ ব্যক্তিরা এই অভিমত ব্যক্ত করেন।
স্থানীয় পাড়া প্রধান চন্দ্র কিরণ কার্বারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদ-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নলেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও হেডম্যান গরেন্দ্র ত্রিপুরা, ইউপি সদস্য গণেশ ত্রিপুরা, ত্রিপুরা সংসদ-এর সদর শাখার সভাপতি কাজল বরণ ত্রিপুরা, সমাজকর্মী উমেন ত্রিপুরা, মিহির ত্রিপুরা এবং ত্রিপুরা স্টুডেন্টস ফোরামের সাবেক সভাপতি জয়প্রকাশ ত্রিপুরা বক্তব্য রাখেন।
এসময় কৃত্তিকা’র মা অনুমতি ত্রিপুরা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমি আমার মেধাবী মেয়েকে অকালে হারিয়েছি। আমার বাড়িতে শত শত মানুষের উপস্থিতিতে আমি সাহস পাচ্ছি। তবে ১৫ দিনের মাথায়ও অপরাধীরা সনাক্ত না হওয়ায় বেদনা অনুভব করছি।
বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদ-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নলেন্দ্র লাল ত্রিপুরা তাঁর বক্তব্যে বলেন, এর আগে জেলা পরিষদ পার্কের মতো জায়গায় একটি ঘটনা ঘটেছে। প্রশাসন অপরাধীদের আটক করতে পেরেছে। এই ঘটনায়ও প্রশাসন চাইলে প্রকৃত অপরাধীদের আটক করতে সক্ষম হবে। আর তা যদি বিলম্ব হয় তাহলে দল-মত নির্বিশেষে জেলার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষকে সাথে নিয়ে মাঠে নামা ছাড়া বিকল্প থাকবে না।
পরে কৃত্তিকার পরিবারের পক্ষ থেকে তার আত্মার শান্তি কামনায় কয়েক’শ মানুষকে মধ্যাহ্ন ভোজে আপ্যায়ন করা হয়। এর আগে কৃত্তিকা’র সমাধি সৌধে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পুস্পার্ঘ্য প্রদান করা হয়।
উল্লেখ্য, গত ২৮ জুলাই স্কুল বিরতিতে টিফিন খেতে বাড়িতে এসে প্রথমে ধর্ষণ এবং পরে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের হাতে নির্মমভাবে খুনের শিকার হন পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী কৃত্তিকা ত্রিপুরা পুনাতি। এই ঘটনায় পুলিশ সন্দেহজনকভাবে চার জনকে আটক করেছে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।