সংসদে কাঁদলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ফাইল ছবি)
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরুর আগে ২৫ মার্চ রাতে এবং যুদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহিনীর বর্বরতার স্থির ও ভিডিও প্রতিবেদন দেখতে গিয়ে বার বার চোখ মুছলেন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১৮ মিনিট ধরে চলা এ সচিত্র ভিডিও প্রতিবেদন দেখার সময় নিরব হয়ে যায় সংসদ অধিবেশন কক্ষ। এ সময় অনেক সংসদ সদস্যও আবেগে চোখ মুছছিলেন।
শনিবার জাতীয় সংসদের বৈঠকে এ ঘটনা ঘটে। এর আগে দুপুর ৩টা ১১ মিনিটে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া সংসদের বৈঠকে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের প্রস্তাব উত্থাপন করেন ফেনী-১ আসন থেকে নির্বাচিত জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) এমপি শিরীন আখতার।
এরপর ফ্লোর নিয়ে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ২৫ মার্চই শুধু নয়। এর পথ ধরে এ দেশে যে গণহত্যা শুরু হয়েছিল… অনেক সংসদ সদস্য আছেন এখানে যারা যুবক, একাত্তরের সেই ভয়াল চিত্র তারা দেখেননি। এখানে আলোচনা হবে। মাননীয় স্পিকার আপনার অনুমতি নিয়ে আমি ওই সময়কার কিছু ছবি-ভিডিও দেখাতে চাই যেগুলো বিভিন্ন মিডিয়াতে প্রচারিত হয়েছিল। সেগুলো দেখাতে চাইছি।
সংসদ কক্ষে রাখার বড় পর্দায় একাত্তরে পাকিস্তানির বাহিনী নির্মমতার বিভিন্ন স্থির ও ভিডিও চিত্র দেখানো হয়। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে শরনার্থীদের দেশ ত্যাগ ও গণহত্যার ভিডিও ও স্থির চিত্র দেখে অনেকেই আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন। সচিত্র প্রতিবেদনের শুরুতে ৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণের ছবি দেখানো হয়। প্রতিবেদনে ২৫ মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধু গ্রেফতার হওয়ার পূর্ব মুহূর্তে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটিও দেখানো হয়। ওই সব স্থিরচিত্র ও ভিডিও দেখানোর পর প্রস্তাবের উপর আলোচনা শুরু হয়। শুরুতেই আলোচনায় অংশ নেন তোফায়েল আহমেদ। খবর-পরিবর্তন ডটকম।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।