সংস্কার হচ্ছে বান্দরবান পৌর এলাকার সড়ক

অবশেষে সংস্কার হচ্ছে সড়ক, ফলে ভোগান্তি নিরসন হচ্ছে বান্দরবান পৌরসভার বাসিন্দাদের। দীর্ঘদিন ধরে পৌর এলাকার বান্দরবান বাজার এর চৌধুরী মার্কেট থেকে শুরু করে ক্যাচিংঘাটা পর্যন্ত সড়ক এর ছিল বেহাল অবস্থা। খানাখন্দে আর ধুলোবালিতে একাকার ছিল পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়কের। সড়কের বেশিরভাগই ছিল ভাঙ্গা আর চলাচলের অনুপযোগী,তবে এবার পৌর কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টির কারণে দীর্ঘদিনের ভোগান্তী লাগব হবে বলে প্রত্যাশা করছে পৌরবাসির।

বান্দরবান পৌরসভার সুত্রে জানা যায়, ৮৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে শুরু হয়েছে বান্দরবান পৌরসভার সড়কের মেরামতের কাজ। ইতিমধ্যে পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের চৌধুরী মার্কেট থেকে সড়ক মেরামতের কাজ শুরু হয়ে ফায়ার সার্ভিস এলাকা পর্যন্ত সম্পন্ন হয়েছে,পর্যায়ক্রমে কাজ চলমান থাকবে।

বান্দরবান পৌরসভার স্টেডিয়াম এলাকার বাসিন্দা মো.তারেকুর রহমান বলেন, বান্দরবান পৌরসভার কয়েকটি সড়কে চলাচল করা খুবই কষ্টকর ছিল,তবে দেরীতে হলে ও সড়কগুলো মেরামত করায় আমরা কিছুটা স্বস্তি পাচ্ছি।

বান্দরবান পৌরসভার কালাঘাটা এলাকার বাসিন্দা মো.রশীদ বলেন, প্রতিদিন কালাঘাটা থেকে সদরে প্রায় কয়েক হাজার মানুষ চলাচল করে, তবে সড়ক ভাঙ্গা থাকায় কষ্টের সীমা ছিলনা। পৌর শহরের গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি দীর্ঘদিন উন্নয়ন বঞ্চিত থাকায় এলাকার জনগন প্রচুর কষ্টে জীবনযাপন করেছে। তিনি আরো বলেন, আমরা চাই ১ম শ্রেনীর পৌরসভা ও পর্যটন জেলা হিসেবে বান্দরবানের সকল সড়কগুলো যেন সুন্দর থাক।

স্থানীয় রিক্সা চালক মো:রমিজ মিয়া বলেন, এতদিন চৌধুরী মার্কেট থেকে ক্যাচিংঘাটা পর্যন্ত কোন যাত্রী নিয়ে আমি যেতাম না, কেননা ওই সড়কের বেশিরভাগ অংশ ভাঙ্গা ছিল। কোন রোগীকে রিক্সা দিয়ে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে তার অবস্থা খুব খারাপ হয়ে যেত,নামার পর বিভিন্ন মন্দ কথা বলতো ,তবে এবার সড়কের মেরামতের কাজ শুরু হওয়ায় যাত্রী আগের চেয়ে বাড়বে আর আমাদের ভোগান্তী অনেকটাই কমবে।

এদিকে বান্দরবান পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মো.হুমায়ন কবির বলেন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে বরাদ্ধ পাওয়ায় পর আমরা দরপত্র আহবান করে ঠিকাদারের মাধ্যমে বান্দরবানের সড়ক সংস্কারের কাজ শুরু করেছি। আর প্রথম পর্যায়ে ৮৭লক্ষ টাকা ব্যয়ে পৌর এলাকার চৌধুরী মার্কেট থেকে বান্দরবান সরকারি কলেজ পর্যন্ত মেরামত কাজ শেষ করবো।

প্রসঙ্গত, জেলা সদরের পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়কের উন্নয়ন কাজ চললেও বান্দরবান শহরের আর্মিপাড়া হয়ে কবির মেম্বারের বাসার সড়কটি দীর্ঘ ২ বছর ধরে পরিত্যাক্ত অবস্থায় ফেলে রাখে পৌর কর্তৃপক্ষ। ফলে প্রতিদিন শত শত শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষ সড়কটি ব্যবহার করতে না পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করছে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।