সাড়ে চারমাস পর বান্দরবানের পর্যটন কেন্দ্রের দূয়ার উন্মুক্ত

টানা সাড়ে চারমাস বন্ধ থাকার পর উন্মুক্ত হলো বান্দরবানের সব পর্যটন কেন্দ্র। সকাল থেকেই বান্দরবানে মেঘলা, নীলাচল, শৈলপ্রপাত, চিম্বুক নীলগীরিসহ পর্যটনকেন্দ্র পর্যটকদের ভ্রমনের জন্য খুলে দেয় প্রশাসন। তবে করোনা সংক্রমন এর ভয়ে এবং পর্যটন কেন্দ্র খোলার প্রথমদিন হওয়ায় বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটকদের তেমন আনাগোনা দেখা যায়নি। বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে আগের মতই শুনশান নীরবতা রয়েছে।

কয়েকটি পর্যটনকেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়, পর্যটন কেন্দ্রের কর্মচারীরা বসে আছে অলসভাবে পর্যটকদের স্বাগত জানাতে,তবে পর্যটকদের দেখা নেই বেশিরভাগ পর্যটনকেন্দ্রে।

এদিকে পর্যটনকেন্দ্র খোলার পাশাপাশি জেলার সকল হোটেল-মোটেল রিসোর্টগুলো পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি নতুন আঙ্গিকে সাজিয়ে তৈরি করছে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

বান্দরবানের আবাসিক হোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম বলেন,পর্যটন খুলে দেয়ায় আমরা খুশি, দীর্ঘদিন পরে পর্যটন শিল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা আবার নতুনভাবে কাজে নেমেছে।

প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলছে, সরকারি নিদের্শনায় শর্তসাপেক্ষে সীমিত পরিসরে আজ থেকে জেলার সকল পর্যটন কেন্দ্র ও হোটেল মোটেল এবং গেস্ট হাউস উন্মুক্ত করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটকরা পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ভ্রমণ করতে পারবে এবং অবশ্যই সরকারি নির্দেশনা মেনে চলতে হবে জনসাধারণকে।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসকের কার্যালয় এর নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) জাকির হোসাইন বলেন, শর্তসাপেক্ষে জেলার সবগুলো পর্যটন স্পট এবং আবাসিক হোটেল, মোটেল, রিসোর্ট খুলে দেয়া হয়েছে। শর্তগুলোর মধ্যে প্রধানত হচ্ছে নো মাস্ক নো সার্ভিস। মাস্ক ছাড়া কেউই কোনো পর্যটন স্পট এবং আবাসিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে ঢুকতে পারবেন না।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত ১লা এপ্রিল থেকে বান্দরবানের সকল পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ রাখার গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে বান্দরবান জেলা প্রশাসন। আর গণবিজ্ঞপ্তি জারির পরপরই জেলার সব পর্যটনকেন্দ্র ও হোটেল-মোটেল-গেস্ট হাউস বন্ধ হওয়ায় দীর্ঘ সাড়ে চারমাস পর আবার উন্মুক্ত হলো ।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।