সড়ক দূর্ঘটনায় বান্দরবান ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক নিহত

NewsDetails_01

কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়ার হারবাং লালব্রিজ এলাকায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় নিহত হয়েছেন। আজ বৃহষ্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৭টায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ওই স্কুলশিক্ষকের নাম নুরুল আলম (৪৪)। তিনি চকরিয়া পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের বিনামারা গ্রামের বাসিন্দা মোশতাক আহমদের ছেলে। তিনি বান্দরবানের ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের (বিসিপিএসসি) জ্যেষ্ঠ শিক্ষক।

তাঁর মৃত্যুর সংবাদে বিসিপিএসসি শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে।

আহতরা হলেন- সিলেটের মো.আজগর আলীর ছেলে মো. হেলাল উদ্দিন (২৮), সফিক আলীর ছেলে মো. শামিম (২৭), তোতা মিয়ার ছেলে লেদু মিয়া (৪৮), নোয়াখালীর অজি উল্লাহর ছেলে আশরাফ (২৫) তার ভাই কলিম উল্লাহ (৩৭) ও পেকুয়ার শিলখালী ইউনিয়নের আবুল কালামের ছেলে মিশকাত (২১) ও মো. শফির ছেলে মোজাফ্ফর হোসেন (২৮)।

NewsDetails_03

চিরিঙ্গা হাইওয়ে ফাঁড়ির পুলিশ পরিদর্শক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সকালে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা একটি যাত্রীবাহী বাস চকরিয়ার হারবাং লালব্রিজ এলাকায় পৌঁছলে বিপরীতদিক থেকে আসা চট্টগ্রামগামী একটি মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে মাইক্রোবাসের এক যাত্রী ঘটনাস্থলে নিহত হন।

তিনি জানান, স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

বিসিপিএসসির জ্যেষ্ঠ শিক্ষক মোহাম্মদ ইয়াকুব জানান, নিহত নুরুল আলমের বাড়ি কক্সবাজারের চকরিয়ায়। তাঁর মৃত্যুর সংবাদে প্রতিষ্ঠানের সবার মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এ সংবাদ পাওয়ার পরপরই শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরা সবাই সমবেত ভাবে দাঁড়িয়ে শোক পালন করেন। বিসিপিএসসির পাঠদান স্থগিত রাখা হয়।

সংসার জীবনে তিনি এক ছেলে ও দুই মেয়ের সন্তানের জনক। তার সহধর্মীনি হিফতুল মাওয়া রুমু কোরালখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা।

আরও পড়ুন