১৮ মে রানী মাওয়ং প্রু’র শেষকৃত্য অনুষ্ঠান

১৭ তম বোমাং সার্কেলের রাজার উচপ্রু সহধর্মীনি

১৭ তম বোমাং সার্কেলের রাজার উচপ্রুর রাণীর শেষকৃত্য অনুষ্ঠান আগামী ১৮ মে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন বান্দরবান বোমাং রাজার কার্যালয়ের প্রধান সহকারী অংজাইউ খেয়াং ।

আজ বুধবার (১৩ মে) বিকেলে এই তথ্য নিশ্চিত করেন তিনি ।

রাজপরিবার সূত্রে জানা যায়, বান্দরবানের বোমাং সার্কেলের রাজা উচপ্রু চৌধুরীর সহধর্মিণী রাণী মাওয়ংপ্রু আর নেই। ১০মে রোববার রাত পৌনে ১২টায় বার্ধক্যজনিত কারনে বান্দরবান জেলা শহরের জাদিপাড়াস্থ রাজবাড়ীতে রানী পরোলোক গমন করেন, মৃত্যুকালে রানীর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। তিনি ১ ছেলে ও ১ মেয়ে রেখে যান।

আরো জানা যায়, রাণী মাওয়ংপ্রু ১৯৪৬ সালের ১৫মে পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙ্গামাটি জেলায় জন্মগ্রহণ করে। রানীর পিতার নাম ক্যথোয়াইউ ও মাতা মাচিং। সুত্রে আরো জানা যায়, ব্যাপষ্টিক মিশন রাঙ্গামাটি থেকে রানী মাওয়ংপ্রু প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা জীবন শেষ করে রাঙ্গামাটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬৫ সালে এসএস সি পাশ করে। এরপরে তিনি চট্টগ্রাম ওমেন কলেজ থেকে ডিগ্রি পাশ করেন। পরে রানী মাওয়ংপ্রু ১৯৬৮ সালে বান্দরবান ডনবস্কো উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা পেশায় যোগ দেন।

রাজপরিবার সূত্রে আরো জানা যায়, পরবর্তীতে বান্দরবানের রাজপুত্র উচপ্রু চৌধুরীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হোন রানী মাওয়ংপ্রু। এরপরে ২০১৩ সালে ১৭তম রাজা হিসেবে বোমাং সার্কেল চীফ হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করে উচপ্রু চৌধুরী আর সেই সাথে সাথে রানীর দায়িত্ব পায় মাওয়ংপ্রু।

দায়িত্বভার গ্রহণ করার পরপরই প্রজাদের সাথে আন্তরিকতার সাথে কাজ করে রাজা উচপ্রু চৌধুরী, আর তার সাথে সাথে রানী হিসেবে সকলের সাথে আন্তরিকভাবে কাজ করে যায় রানী মাওয়ংপ্রু। দাম্পত্য জীবনে রানী দুই সন্তানের জন্ম দেন তার মধ্যে প্রথম সন্তান মেয়ে সিং ওয়াই প্রু ঢাকা ইডেন কলেজ থেকে ডিগ্রী পাশ করে সাংসরিক জীবনযাপন করছে এবং একপুত্র চসিংপ্রু বনি বুয়েট থেকে আর্কিটেকচার পাশ করে বর্তমানে ঢাকায় একটি ডিজাইন কনষ্টাকশন হাউস পরিচালনা করছে।

এদিকে রাণী মাওয়ংপ্রু এর মৃত্যুতে পুরো রাজপরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া, মৃত্যুর সংবাদে প্রজাদের মনে বইছে বিশাদের সুর।

রাজকুমার শৈটিংপ্রু জানান, রাণী মাতা মাওয়ংপ্রু আমাদের খুবই আদর করতেন। তিনি সবসময়ই প্রজাদের খোঁজখবর নিতেন এবং তাদের দু:খে পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করতেন। একজন নারী হিসেবে এবং একজন শিক্ষক হিসেবে এবং একজন রানী হিসেবে তিনি ছিলেন অতুলনীয়।

এদিকে ১০মে রোববার রাত পৌনে ১২টায় বার্ধক্যজনিত কারনে বান্দরবান বাসভবনে রানী পরলোক গমন করলে ও লকডাউনের কারণে রাজবাড়ীতে প্রজাদের উপস্থিতি ছিল খুবই কম। এদিকে তার প্রয়ানে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি, পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা,পৌর মেয়র মোহাম্মদ ইসলামবেবীসহ বিশিষ্টজনেরা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

রাজপুত্র চসিংপ্রু বনি বলেন,আমাদের মায়ের মৃত্যুতে আমরা শোকাহত, আমরা এই শোক কেটে ওঠতে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। রাজপুত্র চসিংপ্রু বনি আরো বলেন,লকডাইনের কারণে সবাই উপস্থিত হতে না পারায় আমরা আপাদত রানীমাকে আমাদের বাসভবনের তয় তলায় রেখেছি ,পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী ১৮মে বান্দরবান কেন্দ্রীয় মারমা শ্বশানে রানী মাতার শেষকৃত্য অনুষ্ঠান সম্পন্ন করা হবে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।