৫০ বছর পর রুমার মুনলাই পাড়ায় বিদ্যুতের বাতি জ্বালালো মন্ত্রী বীর বাহাদুর

স্বাধীনতার ৫০ বছর পরে বিদ্যুৎ সঞ্চালনের সংযোগ লাইন পেল বান্দরবানের রুমা সদর ইউনিয়নের মুনলাই পাড়াবাসী ।

শুক্রবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে পার্বত্য চট্টগ্রামের বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের আওতায় ৯০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে মুনলাই পাড়া বিদ্যুৎ লাইনের উদ্ধোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি ।

ফলক উন্মোচন ও বিদ্যুতের সুইচ চেপে বাতি জ¦ালিয়ে এ বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী। এর মাধ্যমে মুনলাই পাড়া প্রতিষ্ঠার ৪১ বছরে ৬৫ পরিবারের বিদ্যুত পাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলো ।

উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন, সারাদেশে ঘরে ঘরে বিদ্যুতের আলো জ¦লবে এটা প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা । আলো পৌঁছে দেওয়ার প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার একটি অংশ মাত্র এটি । আর তিন পার্বত্য জেলায় ৫৬৫ কোটি টাকার লাইন সম্প্রসারণের কাজ প্রায় সমাপ্ত ।

এছাড়াও মন্ত্রী বলেন, ৫-১০ বছরের মধ্যে যেসব জায়গায় বিদ্যুৎ পৌঁছাবে না সেসব জায়গায় সৌর বিদ্যুৎ লাইন দেয়া হবে। আর এগুলো খুবই উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন। ফ্যান,টিভি,লাইট জ্বালানো যাবে এই সোলার দিয়ে ।

সাংবাদিকদের ব্রিফিং শেষে মন্ত্রী রুমায় পার্বত্য জেলা পরিষদ, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের প্রায় ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।
পওে মুনলাই পাড়ায় এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠানে যোগ দেন পার্বত্য মন্ত্রী ।

আলোচন সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি উহ্লাচিং মারমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, জলা পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম কাউসার হোসেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক উজ্জ্বল বড়–য়া, রুমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মামুন শিবলী, জেলা পরিষদের সদস্য লক্ষী পদ দাশ ।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক উজ্জ্বল বড়ুয়া জানান, আগে লোড শেডিং এর বিড়াম্বনায় পড়তে হত গ্রাহকদের । বান্দরবানের পাঁচ উপজেলা নির্মাণ করা হয়েছে সাবস্টেশন । সাবস্টেশনের কারণে আর লোড শেডিং এর বিড়াম্বনায় পড়তে হবে না গ্রাহকদের ।

এদিকে বিদ্যুতের সংযোগ পেয়ে খুশি মুনলাই পাড়াবাসীর রোবেন বম । নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি জানান, আমরা খুব খুশি। আগে থেকেই ফ্রিজ কিনে রেখেছি। মন্ত্রী উদ্বোধনের পরেই এ ফ্রিজ চালালাম। ভাবতেই পারিনি বিদ্যুৎ আসবে ।

কৃষক থোয়ামলিয়ান বম বলেন, রাতে কুপি নিয়ে অন্ধকারে যেতে অনেক সমস্যা হত। এখন বিদ্যুত এসে গেছে। আর সমস্যা হবে না। রাস্তা-ঘাটে রাতে আলো থাকবে। নাতি নাতনিদের লেখা পড়ায় আর সমস্যা হবে না। অনেক উপকার হইছে।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান উহ্লাচিং মার্মা বলেন, এটা আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের একটি অংশ। শুধু মুনলাই পাড়া নয় এ বিদ্যুৎ সংযোগ পলিকা পাড়া, রুমাচড় পর্যন্ত যাবে বলে আশ^স্থ করেছেন মন্ত্রী ।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।