আন্ডার গ্রাউন্ডে খাগড়াছড়ির বর্তমান ও সাবেক ৩ উপজেলা চেয়ারম্যান

নেতৃত্ব দিচ্ছে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে !

খাগড়াছড়ি জেলার বর্তমান ও সাবেক তিন উপজলা চেয়ারম্যান দীর্ঘদিন ধরে আন্ডার গ্রাউন্ডে। এরা ৪ জনই প্রসীত বিকাশ খীসার নেতৃত্বাধীন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রট (ইউপিডিএফ’র) নীতি নির্ধারক ছিলেন। আন্ডার গ্রাউন্ডে থেকে তারা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের নেতৃত্ব দিচ্ছে।

এরা হলেন, খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান শান্তি জীবন চাকমা, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমা,পানছড়ি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা ও লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা পরিষদের সাবক চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা। তার মধ্যে সুপার জ্যোতি চাকমা অস্ত্রসহ গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘদিন কারাগারে ছিলেন।

একটি নির্ভরযাগ্য সূত্র জানায়, চঞ্চুমনি চাকমা, সুপার জ্যোতি চাকমা ও সর্বোত্তম চাকমা সীমানা পাড়ি দিয়ে ভারতের ত্রিপুরায় অবস্থান করছেন। ২০১৮ সালের ১৯ মার্চ অনুষ্ঠিত জেলার পানছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন শান্তি জীবন চাকমা। শপথ গ্রহনের পর দায়িত্ব গ্রহণ না করে যোগ দেন ঐ সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের সাথে।

সুপার জ্যোতি চাকমা ২০১১ ও ২০১৪ লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। চঞ্চুমনি চাকমা ২০১৪ সালে খাগড়াছড়ি সদর উপজলায় ও সর্বোত্তম চাকমা পানছড়ি উপজেলা থেকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পানছড়িতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ইউপিডিএফ প্রসীত সমর্থিত শান্তি জীবন চাকমা। শপথ নেওয়ার পরে চলে যান আত্মগোপনে। বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান চন্দ্র দেব চাকমা পানছড়ি উপজেলা পরিষদে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অভিযোগ রয়েছে, পানছড়ির বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলার সাবেক অপর তিন উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন, ইউপিপিএফ’র অন্যতম অর্থের যোগানদাতা। এরা বাংলাদেশের জনপ্রতিনিধি হলেও কখনা রাষ্ট্র ও বাংলাদেশের প্রতি অনুগত ছিলেন না। বরং ছিলেন, পাহাড়ের সার্বভৌমত্ব বিরাধী সংগঠন ইউপিডিএফ’র পৃষ্ঠপাষক।

নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্র জানায়, লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারী রাতে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে একটি আমেরিকান তৈরী ফাইভ স্টার পিস্তল, একটি ম্যাগজিন ও ৫ রাউন্ড গুলিসহ আটক হন। এ মামলায় তিনি দীর্ঘদিন কারাগার ছিলেন। জামিনে বের হয়ে চলে যান আত্মগোপনে। অপর দিকে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমা ও পানছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা ২০১৭ সালে আত্মগোপনে চলে যান।

একটি সূত্র জানায়, খাগড়াছড়ির পানছড়ির বর্তমান উপজলা চেয়ারম্যান ও সাবেক এই তিন জনপ্রতিনিধি এখন পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে বসে পার্বত্য চট্টগ্রামে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের নেতৃত্ব দিচ্ছে। তবে সম্প্রতি সর্বোত্তম চাকমা পানছড়ি ঘুরে গেছেন বলে জানা গেছে।

অপর একটি সূত্র জানায়,খাগড়াছড়ি সদর উপজলার সাবেক চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমা, লক্ষ্মীছড়ির সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা ও পানছড়ির বর্তমান উপজলা চেয়ারম্যান শান্তি জীবন চাকমা স্ব-পরিবারে ভারতের ত্রিপুরায় থাকেন।

অপর দিকে, পানছড়ির সাবেক উপজলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমার পরিবারও প্রায় সীমানা পাড়ি দিয়ে ভারতে যাতায়াত করেন। এছাড়াও প্রসীত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফ’র অধিকাংশ শীর্ষ নেতা এখন বাংলাদশ-ভারত সীমানা এলাকায় অবস্থান করছেন। নিরাপত্তা বাহিনীর তৎপরতা বৃদ্ধি পেলে সীমানা পাড়ি দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা ও মিজোরাম রাজ্য অবস্থান নেন।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।