আমার বাবার লাশটা পেলাম না

পাহাড় ধসে নিখোঁজ রুমা পোষ্ট অফিসের পোষ্ট মাষ্টার জবিউল আলম
“আমার বাবার লাশটি পেলাম না, বাবার লাশটি চায়, যাতে গ্রামে নিয়ে এসে অন্তত দাফন করতে পারি”। বাবার লাশ না পাওয়ায় আক্ষেপের সুরে পাহাড়বার্তা’কে একথা বলেন বান্দরবানের রুমা সড়কের দলিয়ান পাড়া এলাকায় গত রোববার পাহাড় ধসের ঘটনায় এখনও নিখোঁজ রুমা উপজেলা পোষ্ট অফিসের পোষ্ট মাষ্টার জবিউল আলম (৫৫) এর মেজো ছেলে শামীম রেজা।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের অনার্স ২য় বর্ষে অধ্যায়নরত শামীম রেজা পাহাড়বার্তা’কে আরো বলেন, “ঈদ উল ফিতরের মাত্র ১৫ দিন আগে তিনি (জবিউল আলম) বান্দরবানের রুমা উপজেলার পোষ্ট অফিসে যোগ দেন কিন্তু বাবা আর ফিরলেন না আমাদের মাঝে”।
পোষ্ট মাষ্টার জবিউল আলম এর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, জবিউল আলমের গ্রামের বাড়ি ব্রাক্ষনবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় হলেও স্ত্রী ও চার ছেলে এবং ১ মেয়েকে নিয়ে বসবাস করতেন কুমিল্লার রাজগঞ্জে। ঘটনা শুনার পর গত ২৩ তারিখ ছেলে শামীম রেজাসহ ৪জন বান্দরবানে লাশের সন্ধানে আসলেও গত বৃহস্পতিবার তারা লাশ না পেয়ে ফিরে যান খালি হাতে। আর এরপর থেকে মর্মান্তিক এই ঘটনায় পরিবারের কারো যেন কান্না থামছেনা।
তিনি পাহাড়বার্তা’কে আরো বলেন, “গত ২২ তারিখ আমার মা সুরাইয়া পারভিন এর সাথে শেষ কথা হয়েছিল বাবার সাথে। তিনি রুমায় পৌছে বাসায় ফোন করবেন বলেছিলেন কিন্তু আর কথা হলোনা”। ঘটনার পর থেকে লাশ উদ্ধার কার্যক্রম নিয়ে উদ্ধারকারীদের কর্মতৎপরতায় সন্তুষ্ট থাকলেও তিনি মনে করেন, লাশের খোঁজে উদ্ধার তৎপরতা বন্ধ করা ঠিক হয়নি। ঘটনার পরপর পাশের ঝিড়িতে উদ্ধারকারীরা তৎপর হলে হয়তো লাশের হদিস পাওয়া যেত।
শামীম রেজা পাহাড়বার্তা’কে আরো বলেন, “বাবার লাশ না পাওয়ার কারনে গত শুক্রবার বাবার গায়েবানা জানাজা পড়েছি আমরা”।
পাহাড় ধসে নিখোঁজ থাকা চারজনের মধ্যে গত সোমবার সকালে চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার সাঙ্গুনদীতে ভাসমান অবস্থায় থাকা রুমা উপজেলার পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের অফিস সহকারী মুন্নি বড়ুয়ার লাশ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করে। মুন্নির লাশ বান্দরবানের সাঙ্গু নদী দিয়ে ভেসে বাঁশখালীর সাঙ্গু নদীতে চলে যায়। পরে স্বজনরা চট্টগ্রামে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাশ সনাক্ত করে বান্দরবানে নিয়ে আসে। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জেলার রোয়াংছড়ি উপজেলার বেতছড়া এলাকার সাঙ্গুনদীর চর থেকে মাটিতে চাপা পড়া অবস্থায় রুমার কৃষি ব্যাংক কর্মকর্তা গৌতম নন্দীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
প্রসঙ্গত,গত রোববার সকালে বান্দরবান রুমা সড়কের দলিয়ান পাড়া এলাকায় পাহাড় ধসের ঘটনায় এখনও নিখোঁজ রয়েছে জেলার রুমা উপজেলার সিংমেচিং মার্মা ও রুমা ডাকঘরের পোষ্ট মাষ্টার জবিউল আলম।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।