আলীকদমে শিক্ষক আব্দুল হান্নানের বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির মামলা : গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি

আলীকদম উপজেলার চম্পট পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আব্দুল হান্নান
বান্দবানের আলীকদম উপজেলায় এক স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে এবার চেক জালিয়াতির অভিযোগে মামলা দায়ের করে এক ব্যবসায়ি, আর আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। অভিযুক্ত শিক্ষক হলেন, উপজেলার চম্পট পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক আব্দুল হান্নান।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জেলার আলীকদম বাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী মন্তোষ কান্তি দাশ এর কাছ থেকে সহকারি শিক্ষক আব্দুল হান্নান ব্যক্তিগত ও পারিবারিক বিবিধ আর্থিক সমস্যা নিরসনের কথা বলে ২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর এককালীন ৫ লক্ষ টাকা ধার নিয়েছিলেন। কিন্তু দীর্ঘদিন তিনি টাকা ফেরত দিতে টালবাহানা করায় স্থানীয় কয়েকজন শিক্ষক নেতা সমঝোতার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে এসব টাকা পরিশোধের জন্য ওই ব্যবসায়ীকে অভিযুক্ত শিক্ষক ২০১৮ সালের ১১ অক্টোবর সোনালী ব্যাংক আলীকদম শাখার ৫ লাখ টাকার একটি চেক প্রদান করেন কিন্তু শিক্ষকের ব্যাংক একাউন্টে কোন টাকা ছিলোনা।
মামলার বাদী মন্তোষ কান্তি দাশ বলেন, হান্নান অনেকদিন আগে টাকা নিয়েছে, অনেক বার সময় নিয়েছেন কিন্তু টাকা দেন নিই,এক পর্যায় তিনি টাকা দেবেন না বলাতে নিরুপায় হয়ে আইনের দারস্থ হয়েছি।
আরো জানা গেছে,ব্যবসায়ী মন্তোষ ওই চেক নিয়ে ব্যাংকে গেলে অ্যাকাউন্টে টাকা না থাকায় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ গত বছরের ১৫ অক্টোবর ‘অপর্যাপ্ত তহবিল’দেখিয়ে সার্টিফিকেটসহ চেকটি ফেরত দেয়। এরপর ব্যবসায়ী ওই শিক্ষককে গত ২৮ অক্টোবর লিগ্যাল নোটিশ পাঠান। নোটিশ পাওয়ার পর অভিযুক্ত শিক্ষক টাকা দিবে না বলে জানালে পাওনাদার ব্যবসায়ী গত ১২ ডিসেম্বর বান্দরবান (আমলী) আদালতে সি.আর মামলা নং ১৮২/২০১৮ মূলে চেক জালিয়াতির একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় আদালত ১৮৮১ সালের নেগোশিয়েবল ইনস্ট্রুমেন্ট এ্যাক্ট এর ১৩৮ ধারায় মামলাটি আমলে নিয়ে আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।
এই ব্যাপারে শিক্ষক মোঃ হান্নান জানান, আমি ৫০ হাজার টাকা নিয়েছি, উনার কাছ থেকে আমি ৫ লক্ষ টাকা নেয়নি, এটি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।