খাগড়াছড়িতে পরিবহণ শ্রমিকদের সংঘর্ষে আহত ২০

সাংবাদিকের ওপর হামলা

খাগড়াছড়ি বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনকে ঘিরে বুধবার শেষ বিকেলে দুই দল শ্রমিকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এসময় পুলিশ, সাংবাদিক পথচারী সহ ২০জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৭ জনকে খাগড়াছড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গুরুতর আহত ১ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

আজ বুধবার বিকেল ৪ টায় পৌর বাস টার্মিনাল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনের সময় সমিতির এক অফিস সহকারী ও এক সদস্যর মধ্যে কথাকাটাকাটির জের ধরে এ সংঘর্ষের সূত্রপাত।

সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ সদস্যদের বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার শেল এবং রাবার বুলেট ছুড়তে দেখা গেছে।
খাগড়াছড়ি আধুনিক জেলাসদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. রিপল বাপ্পি চাকমা জানান, বাস টার্মিনালে পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন চলাকালে শ্রমিকদের সংঘর্ষে আহত ২০ জনকে হাসপাতালকে আনা হয়েছে। এরমধ্যে আলাউদ্দিন নামে একজন চোখে গুরুতর জখম হওয়ায় চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আরিফুল ইসলাম বলেন, শ্রমিক ইউনিয়নের ভোটদানকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের সূত্রপাত। নির্বাচন ভোট প্রদানের সময় শেষ হয়ে যাচ্ছিল, কিন্ত তখন পর্যন্ত অনেক ভোটার ভোট দিতে পারে নাই। ভোট দেয়ার জায়গা সংকুলান হচ্ছিল না। এটা নিয়েই সংঘর্ষের সূত্রপাত। শ্রমিকরা নিজেরাই সংঘর্ষে জড়িয়েছে। এসময় পুলিশ অবরুদ্ধ ছিল। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এদিকে সংঘর্ষ চলাকালে যমুনা টিভি’র খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি শাহরিয়ার ইউনুছের ক্যামেরা ছিনতাই, চ্যানেল টুয়েন্টিফোর প্রতিনিধি নুরুচ্ছাফা মানিক ও এশিয়ান টিভি প্রতিনিধি বিপ্লব তালুকদারের ওপর উচ্ছৃঙ্খল শ্রমিকদের হামলার ঘটনায় খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়ন (কেইউজে)গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

কেইউজে সভাপতি প্রদীপ চৌধুরী ও সা: সম্পাদক সৈকত দেওয়ান পৃথক এক বিবৃতিতে হামলাকারী শ্রমিকদের শনাক্ত করে অবিলম্বে আইনের আওতায় আনা এবং ছিনতাইকৃত মোবাইল উদ্ধারে প্রশাসনের আশু পদক্ষেপ কামনা করেছেন।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।