খুলনায় মন্দির-প্রতিমা-বাড়িঘর ভাংচুরের প্রতিবাদে খাগড়াছড়িতে সমাবেশ

খুলনার রূপসা উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের শিয়ালী গ্রামে ১০টি মন্দির প্রতিমা ভাংচুর ৫৮টি বাড়িঘর-ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর-হামলা-লুটপাট-শ্লীলতাহানি এবং বিভিন্ন স্থানে হিন্দু নির্যাতনের প্রতিবাদে দোষীদের দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে শাস্তি নিশ্চিত এবং সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বাস্তবায়নের দাবিতে খাগড়াছড়ির জেলা সদরে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ শুক্রবার (১৩ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টায় জাগো হিন্দু পরিষদ’ খাগড়াছড়ি জেলা শাখার উদ্যোগে জেলা শহরের শাপলা চত্বরে এটি অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে জাগো হিন্দু পরিষদের খাগড়াছড়ি শাখার সভাপতি তুষার কান্তি ধর’র সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন সনাতন সমাজ কল্যাণ পরিষদের খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা শাখার সভাপতি সুজিত দাশ, সাধারণ সম্পাদক সুমন আচার্য্য, বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটির খাগড়াছড়ি জেলা শাখার আহবায়ক প্রভাত তালুকদার, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব ও ছাত্র মহাজোট’র খাগড়াছড়ি শাখার আহবায়ক রানা দাশ প্রমুখ। এসময় মানববন্ধনে জাতীয় হিন্দু পরিষদের খাগড়াছড়ি শাখার সদস্য প্রণব দে’র সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতীয় হিন্দু পরিষদের খাগড়াছড়ি শাখার অর্থ সচিব নয়ন দেবনাথ।

এসময় বক্তারা বলেন, ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী গ্রামের চিহ্নিত উগ্র একদল সন্ত্রাসী সশস্ত্র অবস্থায় সুপরিকল্পিতভাবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উপর হামলা চালিয়ে যে ন্যাক্করজনক ঘটনা ঘটিয়েছে তা অত্যন্ত ঘৃণ্য ও নিন্দনীয়। এমন জঘণ্য ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অনতিবিলম্বে প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, দ্রুত মন্দিরগুলো পুনঃ সংস্কার, ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী ও পরিবারগুলোর পুনর্বাসন এবং ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।

উল্লেখ্য,গত শনিবার (৭আগস্ট) খুলনার রূপসা উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের শিয়ালী গ্রামে কয়েকটি মন্দির এবং স্থানীয় হিন্দু মালিকানাধীন কিছু দোকান ভাংচুর হয়। হামলার ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (৭আগস্ট) বিকেলে উপজেলার শিয়ালি গ্রামে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।