পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় বিঝুর জীবন নিরাপদ নয় : সন্তু লারমা

রাঙ্গামাটির কল্যাণপুরে আয়োজিত আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা)
পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় সাংগ্রাই, বৈসু, বিজু, সাংগ্রাইন-এর জীবন নিরাপদ নয়। বিঝু উপলক্ষ্যে রাণী বিনীতা রায় পাঠাগার ও ক্লাব কর্তৃক শনিবার বিকালে রাঙ্গামাটির কল্যাণপুরে আয়োজিত আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান ও কল্যাণপুর গ্রামের মুরুব্বী জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা) একথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের জুম্ম জনগণের আত্মনিয়ণাধিকার নিশ্চিতকরণে লড়াই-সংগ্রাম হয়েছে। কেবল মহান নেতা মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা নয়, তারও বহু আগে থেকেই জুম্ম জনগণের এই বিঝুর জীবন সুন্দর ও নিরাপদ করতে আন্দোলন শুরু করেছিলেন। একপর্যায়ে ১৯৯৭ সালে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়িত না হওয়ায় এখনো পার্বত্যাঞ্চলে সেনাশাসন চলছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে উপনিবেশিক শাসন-শোষন বজায় রয়েছে।
তিনি এসময় আরো বলেন, দেশের শাসকগোষ্ঠী জুম্মদের সংস্কৃতি, বিঝু, সাংগ্রাই, বৈসুকে ধ্বংস করতে চায়। তাই আজকে বিঝুর জীবন কেন নিরাপদ নয় সেটা গভীরভাবে বুঝতে হবে, ভাবতে হবে। বিঝুর জীবন নিরাপদকরণে আমাদের করণীয় কী বা কী ভ‚মিকা পালন করতে হবে তা কল্যাণপুরবাসীসহ সকলকে গভীরভাবে উপলব্ধি করতে হবে।
রাণী বিনীতা রায় পাঠাগার ও ক্লাবের সভাপতি সুবীর চাকমা সুজনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের সহ সভাপতি শক্তিপদ ত্রিপুরা, রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অরুণ কান্তি চাকমা ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রিতা চাকমা, রাণী বিনীতা রায় পাঠাগার ও ক্লারে উপদেষ্টা প্রণয় খীসা ও শ্যামা প্রসাদ চাকমা প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন বিঝু উদযাপন কমিটির আহবায়ক কনিষ্ক চাকমা। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন রাণী বিনীতা রায় পাঠাগার ও ক্লাবের উপদেষ্টা মঙ্গল কুমার চাকমা ও আশাপূর্ণ চাকমা, গ্রামের মুরুব্বী দয়ালসুখ চাকমা, অন্ন সাধন চাকমা প্রমুখ ব্যক্তিবর্গ।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শক্তিপদ ত্রিপুরা বলেন, বিঝু, বৈসু, সাংগ্রাই হচ্ছে জুম্ম সংস্কৃতির ধারক-বাহক। এটা জুম্মদের সর্ববৃহৎ ঐতিহ্যবাহী জাতীয় উৎসব। এটি পার্বত্য চট্টগ্রামের সকল জুম্ম জাতিসমূহ একযোগে পালন করে থাকে। তাই এই উৎসব জুম্ম জাতিসমূহের ঐক্য-সংহতি ও মেলবন্ধনের সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়। বিঝু, বৈসু, সাংগ্রাই কেবল একটি আনন্দের নয়, এটা জুম্ম জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম ও আত্মপরিচিতিরই অবিচ্ছেদ্য অংশ। জুম্ম জনগণের সংস্কৃতি ও অধিকার সুরক্ষায় পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের কোন বিকল্প নেই।
রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অরুণ কান্তি চাকমা বলেন, বিঝু উদযাপনে জুম্মদের সংস্কৃতি যাতে প্রতিফলিত সেভাবে পালন করা দরকার। বিঝুর সময় যাতে শান্তি, শৃঙ্খলা ও সোহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ নষ্ট না হয় তার প্রতি সচেতন থাকতে সকলকে তিনি আহব্বান জানান।
বিঝু-২০১৮ উপলক্ষ্যে রাণী বিনীতা রায় পাঠাগার ও ক্লাব কর্তৃক প্রায় অর্ধ মাস ব্যাপী জুম্মদের ঐতিহ্যবাহী খেলাধুলা, শিশু চিত্রাঙ্কন ও সঙ্গীত প্রতিযোগিতা, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের পরে কল্যাণপুরের বিশিষ্ট শিল্পী ও শিশু শিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

আরও পড়ুন
3 মন্তব্য
  1. MD Furkan Hossain Munna বলেছেন

    এই খুনীটা পাবর্ত্য বা‌সির জন্য সব চাই‌তে ‌বে‌শি অনিরাপদ পাবর্ত্য চট্রগ্রা‌মে শত শত পাহাড়ী বাঙ্গালী গুম,খুন,হত্যা,চাঁদাবা‌জি, অবৈধ অস্ত্র, সকল অপ ক‌র্মের মুল হোতা খুনী শন্ত লারমা।

  2. মোঃ শফিকুর রহমান বলেছেন

    ওত রাজাকার

  3. অনিক মল্লিক বলেছেন

    সালা তুমি নিজেই তো একটা চাঁদাবাজ। তুমি কি করে পার্বত্যবাসীর ভালো চাইবে।
    তোমার কারণে পাহাড়ে ও মানুষ শান্তিতে ঘুমাইতে পারে না।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।