রাঙামাটিতে এবার ৪০টি পূজা মন্ডপে শারদীয় দুর্গোৎসব

রাঙামাটি শহরের গীতাশ্রম মাতৃমন্দিরের দুর্গা প্রতিমা
শরতের আকাশে আবার বেজে উঠল শাঁখ,মৃৎ শিল্পীর তুলিতে লেগেছে রঙের ছন্দ। ঢোলের সুমধুর সুরে দশভুজার আগমনী বার্তা। সনাতনী স¤প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসবের আর মাত্র ৩ দিন বাকী। ২৬ সেপ্টেম্বর মহাষষ্ঠীর মাধ্যমে শারদীয় দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। এরই মধ্যে পাহাড় আর অরন্যের শহর রাঙামাটিতে আসন্ন শারদীয়া দূর্গোৎসবের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে জেলার পূজা মন্ডপগুলোতে। এখন শুধু উৎসবের অপেক্ষার পালা। সনাতনী কৃষ্টির হৃদয় মন্দিরে এই প্রিয় শারদোৎসব অপার্থীব জীবনের এক জাগ্রত ধ্বনিময়ী অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ।
জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সুত্রে জানা গেছে, এবছর শারদীয়া দূর্গোৎসবে রাঙামাটির দশ উপজেলায় সর্বমোট ৪০টি পূজা মন্ডপে দূর্গোৎসব অনুষ্টিত হবে। রাঙামাটি সদরে ১৪টি, কাপ্তাই উপজেলায় ৭টি, কাউখালি উপজেলায় ৪টি, বাঘাইছড়ি উপজেলায় ৪টি, রাজস্থলী উপজেলায় ৩টি, লংগদু উপজেলায় ২টি, নানিয়ারচর উপজেলায় ২টি, বিলাইছড়ি উপজেলায় ১টি, জুড়াইছড়ি উপজেলায় ১টি, বরকল উপজেলায় ২টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।
ইতিমধ্যে অনেক মঠ-মন্দিরে পূজা মন্ডপের প্রতিমার তুলির আচর শেষ হয়েছে। সব উপজেলায় উৎসবের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ। এখন শুধু উৎসব দিনের অপেক্ষার পালা। রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আসন্ন শারদীয়া উৎসব শান্তিপুর্ন ও উৎসবমূখর পরিবেশে পালনের জন্য আইন-শৃংখলাসহ সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহনের উদ্যোগ নিয়েছে।
অপরদিকে,শহরের প্রান কেন্দ্রে অবস্থিত কাঁঠালতলী মাতৃ মন্দির দুর্গা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রবিন সেন বলেন, প্রতিমা রং তুলির কাজ শেষ হয়েছে। এখন গেইটের সাজসজ্বার কাজ চলছে। আমরা প্রতিমা মূল কাজ সম্পূর্ণভাবে শেষ করেছি। সব মিলিয়ে ৭০% কাজ সম্পূর্ণ হয়েছে। বাকি কাজগুলোও শেষ হয়ে যাবে। এবার পূজা মন্ডপে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে প্রশাসন আমাদের আশ্বস্ত করেছেন। আশাকরি, নির্বিঘেœ আমরা শারদীয়া দূর্গা পূজার আনন্দ-উৎসবে মেতে উঠতে পারবো।
রাঙামাটি জেলা পুজা উদযাপন সদস্য সচিব স্বপন কান্তি মহাজন জানিয়েছেন, জেলা উপজেলার পূজা মন্ডপে শারদীয়া দূর্গাপূজা উৎসব মুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে। এবার রাঙামাটির জেলার সদরসহ ১০টি উপজেলার মধ্যে রাঙামাটিতে সর্বাধিক ৪০ টি মন্ডপে শারদীয়া দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে। এ ব্যাপারে প্রতিটি পূজা মন্ডপের সকল প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়। প্রতিটি মন্ডপে প্রশাসন থেকে কঠোর নিরাপত্তাসহ সরকারী ভাবে সাহায্য ও সহযোগিতা করা হয়েছে। রাঙামাটি জেলা-উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিটি পূজা মন্ডপে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে প্রশাসন আমাদের আশ্বাস দিয়েছে।
এদিকে,রাঙামাটি জেলা পুলিশ সুপার সাঈদ তারিকুল হাসান জানান, “ধর্ম যার যার উৎসব সবার” এই লক্ষ্য নিয়ে রাঙামাটিতে প্রতিটি পূজা মন্ডপে এ বছর বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকবে। শারদীয় দুর্গাপুজা উপলক্ষে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে নেওয়া হবে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পূজা চলাকালীন দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি সাদা পোশাকে নারী ও পুরুষ পুলিশ সদস্যরা বিভিন্ন পূজা মন্ডপসহ গুরুত্বপূর্ণ এলাকা গুলোতে বিশেষ নজরদারী রাখবে। আইন শৃংখলা বাহিনীর পাশাপাশি সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকেও নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগ দেয়া হবে পূজা মন্ডপ গুলোতে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।