নানা আয়োজনে রাঙ্গামাটিতে শান্তি চুক্তির ২১ বছরপূর্তি উদযাপিত

রাঙ্গামাটিতে শান্তি চুক্তির বছরপূর্তি উদযাপন
রাঙ্গামাটিতে নানা আয়োজনে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির ২১ বছরপূর্তি উদযাপিত হয়েছে। আজ রোববার সকালে এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে একটি শোভাযাত্রা শহর প্রদক্ষিণ শেষে জেলা পরিষদ চত্তরে গিয়ে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ার‌্যান বৃষ কেতু চাকমা।
শোভাযাত্রা শেষে পার্বত্য জেলা পরিষদের আয়োজনে পরিষদের সম্মেলন কক্ষে শান্তি চুক্তির বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য মহিলা আসনের সংরক্ষিত সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু। এতে বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা, জেলা পরিষদের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা সাদেক হোসেন, ডিজিএফআই রাঙ্গামাটি শাখার অধিনায়ক কর্ণেল সামশুল আলম, রাঙ্গামাটি জোন কমান্ডার কর্লেল রিদওয়ানুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা: শহীদ তালুকদার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এসএম শফি কামাল প্রমূখ।
আলোচনা সভায় এমপি চিনু বলেন,পাহাড়ে এক সময় একটি গ্রুপ চাঁদাবাজি করলেও বর্তমানে চারটি গ্রুপ চাঁদাবাজিতে সক্রিয়। তাদের জ্বালায় অতিষ্ট পাহাড়ের বাসিন্দারা। কোন সমস্যা অস্ত্র দিয়ে সমাধান করা যায় না। অস্ত্র রেখে সাধারণ মানুষের কাতারে আসুন। আলোচনার টেবিলে বসে সমাধান করুন।
এদিকে, জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে পার্বত্য জনসংহতি সমিতির উদ্যোগে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য উষাতন তালুকদার। তিনি অভিযোগ করে বলেন, শান্তি চুক্তির এতবছর পরেও পাহাড়ে শান্তি ফিরে আসেনি। পাহাড়ের মানুষ এখনও অরক্ষিত ও নিরাপত্তহীন। সরকার শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের নামে বছরের পর বছর তালবাহানা করে যাচ্ছে।
তাছাড়া, বিকেলে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জেলা কার্যালয়ে শান্তি চুক্তির বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনা সভায় সহ সভাপতি চিংকিউ রোয়াজা, হাজী মোঃ কামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সভায় বক্তারা বলেন, আঞ্চলিক দলের অসহযোগিতার কারণে শান্তিচুক্তির পুর্ণ বাস্তবায়ন হচ্ছে না।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।