পাহাড়ে একটি গোষ্ঠী শান্তির কথা বলে চাঁদাবাজি করছে

লামায় মুরুং সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন আলীকদম জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল মাহাবুবুর রহমান।
বান্দরবানের লামা উপজেলায় মুরুং সম্মেলন- ১৭ শুক্রবার দুপুরে সরই ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্টিত হয়েছে। সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে আলীকদম সেনাবাহিনীর জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল মো. মাহাবুবুর রহমান-পিএসসি প্রধান অতিথি ছিলেন। এতে মেজর জিয়াউল হক, চম্পাতলী আর্মি ক্যাম্প ইনচার্র্জ মোহাম্মদ রাশেদ, সাবেক মুরুং কমান্ডার মাংরুম মুরুং, কুরুকপাতা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ক্রাতপুং ম্রো, সরই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদ উল আলম বিশেষ অতিথি ছিলেন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আলীকদম উপজেলার মুরুং কমান্ডার মেনদন মুরুং, লামা উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মেনপিও মুরুং, মুরুং নেতা মেনওয়াই মুরুং, রনি মুরুং, চিংচং মুরুং প্রমুখ।
আলীকদম মুরুং কল্যাণ ছাত্রবাসের পরিচালক ইয়ংলক মুরুং এর সঞ্চালনায় সম্মেলনে মুরুং নেতা বলেন, পাহাড়ে একটি গোষ্টি ১১টি জুম্ম জাতীর শান্তির কথা বলে বেড়ায়। আবার তারাই এলাকায় চাঁদার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রাস্তা ঘাট নির্মাণসহ বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। এদের কারণে পাহাড়ে জীবন-মানকে স্তবির হয়ে পড়েছে। তারা কখনও শান্তির জন্য লড়তে পারেনা কিংবা আমাদের ভাই হতে পারেনা। তারা নিজেদের স্বার্থের জন্য পাহাড়ে চাঁদাবাজি, অপহরন, গুম, খুন, সন্ত্রাসি কর্মকান্ড করছে। তাই সবাইকে একযোগে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ওইসব সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজদের প্রতিহত করতে হবে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, দেশের জন্য জাতি ধর্ম ভেদাভেদ না করে সবাইকে মনে করতে হবে আমরা বাংলাদেশি। আমাদের সবার একই অধিকার। কাউকে হিংসা-বিভেদ না করে ভালবাসা দিয়ে জয় করে নিতে হবে। এ সময় তিনি আরও বলেন, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টি সম্প্রদায়ের মধ্যে যারা বিপদগামী হয়েছে, তারা ভুল পথ থেকে সরে সঠিক পথে ফিরলে পুনর্বাসিত করা হবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।