বান্দরবানে গাউছিয়া কমিটির আয়োজনে মাহফিল

বান্দরবানে গাউছিয়া কমিটির আয়োজনে মাহ্ফিল
গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ বান্দরবান বালাঘাটা শাখার আয়োজনে ৭তম বার্ষিক পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) মাহ্ফিল-২০১৭ অনুষ্ঠিত হয়েছে।বুধবার বিকাল ৪টা থেকে রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এই মাহ্ফিল চলে।
বালাঘাটা বাজার প্রাঙ্গনে মাহ্ফিলের আয়োজন করা হয়। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী(সাঃ) মাহ্ফিলে প্রধান বক্তা হিসেবে দিক নির্দেশনামূলক হেদায়তী ওয়াজ ও নচিহত প্রদান করেন, চট্টগ্রাম,চান্দঁগাও,বারীয়া দরবার শরীফ সাজ্জাদানশীল প্রখ্যাত আলেমেদ্বীন রাহনুমায়ে শরীয়ত ও ত্বরিকত,হযরতুলহাজ্ব আল্লামা মুফতি সৈয়দ শামছুদোহা বারী সাহেব।
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী(সাঃ) মাহ্ফিলে উদ্বোধক হিসেবে ইসলামের আলোকে আলোচনা করেন বান্দরবান ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ মুনিরুজ্জামান সাহেব। বিশেষ ওয়ায়েজ হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ইসলামিক আলোচনা করেন চট্টগ্রাম পটিয়া-নয়াহাট কাশিয়াইশ শাহী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবু তালেব মুঈনী সাহেব।
বিশেষ ওয়ায়েজ হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ইসলামিক আলোচনা করেন, বালাঘাটা বাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবুল কালাম আজাদ সাহেব। এছাড়াও মাহফিলে স্থানীয় ওলামাগণ আলোচনা পেশ করেন। ৭তম বার্ষিক পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) মাহ্ফিল সভাপতিত্ব করেন গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ বান্দরবান বালাঘাটা শাখার সভাপতি মোহাম্মদ নাছির সওদাগর।
মাহফিলে সঞ্চলনা করেন মাওলানা আব্দুর রহমান। মাহ্ফিলে আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ এর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ বান্দরবান বালাঘাটা শাখার সহ-সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মোঃ কোরবান আলী,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মোঃ শামসুল ইসলাম,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ কামাল হোসেন,বান্দরবান ইফা ফিল্ড অফিসার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সবুজ। এছাড়াও মাহ্ফিলে সার্বিক সহযোগিতা ও অর্পিত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ বান্দরবান বালাঘাটা শাখার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নুর হোসেন-১,সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ নুর হোসেন-২ মোঃ বেলাল উদ্দিনসহ এলাকার এক ঝাঁক ইসলাম প্রিয় যুবকগণ এবং কমিটির অন্যান্য সদস্যগণ।
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী(সাঃ) মাহফিলে বক্তারা বলেন,পবিত্র কোরআন হচ্ছে সমগ্র মানব জাতির জন্য মাহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের পক্ষ থেকে পাঠানো একটি সংবিধান,এই কোরআনের মধ্যে ইসলাম যে একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা তা প্রকাশ করেছেন মহান আল্লাহ,ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম,ইসলামে জঙ্গীবাদ-সন্ত্রাস,বোমাবাজদের কোন স্থান নেই,মানুষকে অন্যায় ভাবে হত্যা করা ইসলামে হারাম। মুসলমানরা আজ কোরআন থেকে দুরে সরে আসার কারণে সারা বিশ্বে জুলুম,অত্যাচারের শিকার হচ্ছে।
বক্তারা আরো বলেন,ইসলামের পাচঁটি স্তম্ভ এর মধ্যে নামায অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ফরজ কাজ,এই পাচঁ ওয়াক্ত নামায সঠিক ভাবে আদায় না কারনে আজ চারিদিকে অশান্তি,ঝগড়া-বিবেদ শেষ হচ্চে,আসুন আমরা সকলে আল্লাহর হুকুম আহকাম ও রাসুল(সাঃ)এর রেসালত-সীরত ও তরীকা মতে আমাদের জীবন গড়ি,তাহলে ইহকাল ও পরকালে শান্তি পাবো।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।