আলীকদমে ২য় দিনের মতো চলছে লক ডাউন

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে দ্বিতীয় দিনের মত লক ডাউন চলছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৬মার্চ) সকাল দশটার দিকে আলীকদম বাজার, পানবাজার, নয়াপাড়া, উপজেলা,বাস টার্মিনাল এলাকা ঘুরে দেখা যায় ওষুধের দোকান, মুদির দোকান,কাঁচাবাজার,মাছের বাজার,মুরগির দোকান ছাড়া অন্য সব দোকান বন্ধ আছে। হাতে গুণা কিছু টমটম ও মোটরসাইকেল চলছে। কিন্তু পুরোপুরি ভাবে মানুষ ঘরবন্দী না থেকে প্রয়োজনে ও অপ্রয়োজনে দুয়েক জন বা তার অধিক মিলে জটলা তৈরি করছে। লক ডাউনের মধ্যে নির্দেশনা না মেনে পাশাপাশি হেঁটে গন্তব্যে যাচ্ছে কিছু সাধারণ মানুষ।

উপজেলা হোটেল নুর জাহানের মালিক মোহাম্মদ নুরু বলেন, দোকানপাট বন্ধের কারণে বেচা বিক্রি বন্ধ হলেও সবার মঙ্গলের জন্য মেনে নিতে হবে, সবার এই নিয়ম মেনে চলা উচিত।

স্থানীয় রিক্সা চালক সৈয়দ আলম বলেন, রিক্সা চালিয়ে যা পাই তাই দিয়ে পরিবার চালায়। গতকাল থেকে রিক্সায় চলছে হাতে গুণা পাঁচ ছয়েক, যাত্রীও নেই। এমন ভাবে কতদিন চলবে কে জানে? সরকার থেকে আমাদের জন্য কিছু ব্যবস্থা করলে খুব ভাল হত। আমরা ঘর থেকে বেরও হতাম না।

আলীকদম ৩নং নয়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফোগ্য মার্মা বলেন, অতিদরিদ্র ও খেটে-খাওয়াদের তালিকা করার নির্দেশনা দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। কেন কি বিষয়ে এখনো জানিনা। ইউপি সদস্যদের স্ব স্ব ওয়ার্ডের তালিকা দিতে বলেছি।

আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডাঃ মোঃ মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টাইনে একজন আছে। এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক। ঘরে থাকুন,অপ্রয়োজনীয় ঘরে থেকে বের হবেন না এবং পাশাপাশি সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি ।

আলীকদম উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সায়েদ ইকবাল জানান, পরিস্থিতি ভাল,সবাই নির্দেশনা মেনে চলছে। এখনোও কোথায় নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য ও ঔষুধের দোকান ছাড়া অন্য কোন দোকান খোলা রাখার অভিযোগ পাইনি। আজকের পর থেকে টমটম বা রিকশা চলবে না। একজন করে মোটর সাইকেল চালাতে পারবে।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সায়েদ ইকবাল ও আলীকদম জোনের জোন কমান্ডার লেঃকর্ণেল সাইফ শামীম লক ডাউনের দ্বিতীয় দিনে আলীকদম বাজারসহ বিভিন্ন এলাকা পর্যবেক্ষণ করে, সচেতনতা মূলক প্রচার ও মাইকিং করেন।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।