খাগড়াছড়িতে সেনাবাহিনীর সঙ্গে ইউপিডিএফের গোলাগুলি

খাগড়াছড়ির দীঘিনালার দুর্গম জারুলছড়িতে ইউপিডিএফ সন্ত্রাসীদের গোপন আস্তানায় অভিযান চালিয়েছে সেনাবাহিনী। এসময় সন্ত্রাসীদের সঙ্গে গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। শুক্রবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি এই তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ইউপিডিএফ (প্রসীত) দলের সন্ত্রাসীরা এই এলাকায় অস্থায়ী ঘাঁটি গড়ে তুলে। সেখানে তারা নতুন ভাবে আধিপত্য বিস্তার এবং নতুন সন্ত্রাসীদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।

স্থানীয় জনগণের মধ্যে নতুনভাবে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করা, চাঁদাবাজি, সাধারণ মানুষকে অহেতুক হয়রানি এবং মারধর করা ছাড়াও নানা অসামাজিক অপকর্ম চালিয়ে আসছে দলটি। এমন তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার (৪ ফেব্রুয়ারি) ভোর ৫টায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে দিঘীনালা জোনের অপারেশন দল।

তবে সিকিউরিটি ফোর্সের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ করতে থাকে। সেনাবাহিনীর অভিযান দল তাৎক্ষণিক পাল্টা আক্রমণের মাধ্যমে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করে। ফলে সন্ত্রাসী দলটি তাদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে মজুদ করা সরঞ্জামাদি ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ দলিল দস্তাবেজ রেখেই পিছু হঠতে বাধ্য হয়।

ক্যাম্প হতে অভিযান দলটি সন্ত্রাসীদের ইউনিফর্মের অংশ বিশেষ, সন্ত্রাসীদের দলীয় নামীয় তালিকা, চাঁদা আদায় সংক্রান্ত নিয়মের নির্দেশিকা এবং ২ (দুই)টি এলএমজির ওয়াই স্টিক উদ্ধার করে। অভিযান শেষে সেনা সদস্যরা সন্ত্রাসীদের ৪টি ব্যারাক এবং ২ ডিউটি পোস্ট ও অস্ত্রাগার ধ্বংস করেন।

এদিকে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) এর মুখপাত্র অংগ্য মারমা আজ ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২ শনিবার এক বিবৃতিতে ‘খাগড়াছড়ির জারুলছড়িতে’ সেনাবাহিনী কর্তৃক ‘ইউপিডিএফের গোপন আস্তানা ধ্বংস’ করা হয়েছে এবং সেনাবাহিনী ও ইউপিডিএফের মধ্যে ‘গুলি বিনিময়ের’ ঘটনা ঘটেছে বলে মিডিয়ায় যে সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে তা সর্বৈব মিথ্যা, বানোয়াট, কাল্পনিক ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মন্তব্য করেছেন।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।