টানা বন্ধে জমজমাট বান্দরবান শিশুপার্ক

টানা ৩দিনের ছুটিতে পর্যটকের ঢল নেমেছে বান্দরবানে। জেলার সর্বত্র এখন পর্যটকদের ভীড়। মেঘলা, নীলাচল, শৈলপ্রপাত, চিম্বুক, নীলগিরি, নীল দিগন্ত, রেমাক্রী, নাফাকুম, দেবতাখুমসহ জেলার সবগুলো দর্শনীয় স্থানে এখন পর্যটকদের উপচেপড়া ভীড়, শুধু তাই নয় হোটেল মোটেল রিসোর্ট এবং গেস্ট হাউস গুলো কানায় কানায় পরিপূর্ণ।

এদিকে বিজয় দিবস আর শুক্র-শনিবার ৩দিনের ছুটি পেয়ে বান্দরবানের একমাত্র শিশুপার্কে জড়ো হয়েছে হাজারো বিনোদনপ্রেমী। শিশু-কিশোরদের পাশপাশি বয়স্করা ও ভীড় করছে শিশুপার্কে আর শিশুদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে অনেকেই চড়ছে নানা রাইডে।

জেলা সদরের সেগুনবাগিচা এলাকায় শিশু পার্কে ঘুরতে আসা চট্টগ্রামের শিক্ষার্থী মো.জামাল বলেন, বান্দরবানের বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্র ঘুরে অনেক মজা করেছি কিন্তু ছোট পরিসরে নদীর তীরে শিশুপার্কে ভ্রমন করে মজা পেলাম আরো বেশি।

শিশু পার্কে ঘুরতে আসা জেলা সদরের নিউগুলশান এলাকার জাহিদ বলেন, একসময় বান্দরবানে শিশুদের জন্য কোন পার্ক ছিল না, তবে দীর্ঘ ১বছর ধরে শিশুরা পার্কের স্বাদ পাচ্ছে আর মহান বিজয় দিবসের বন্ধে পরিবারের সবাইকে নিয়ে শিশু পার্কে বেশ ভালই সময় কাটাচ্ছি।

শিশুপার্কে ঘুরতে আসা রাজশাহীর পর্যটক সুমি আক্তার বলেন, বান্দরবানে এই বন্ধে এসে অনেক মজা করলাম, সবচেয়ে বেশি মজা হয়েছে শিশুদের সময় দিতে পেরে।

তিনি আরো বলেন, বাচ্চাদের ইলেকট্রনিক মিনি ট্রেন,মেরী গো-রাউন্ড, রং ডং,স্প্রীং ঘোড়া, কম্বাইন্ড সুইং, স্লিপারসহ বিভিন্ন রাইড এ চড়ালাম আর সবাই খুব সময় কাটালাম আনন্দে।

বান্দরবান পৌরসভার পরিচালনাধীন শিশুপার্কের কাউন্টার ম্যানেজারের দায়িত্বে থাকা ঝন্টু দত্ত বলেন, ১৬ ডিসেম্বর থেকে ১৮ ডিসেম্বর ৩দিনের বন্ধ পেয়ে আমাদের পার্কে প্রচুর দর্শনার্থী এসেছে। বিশেষ করে শিশুদের পাশাপাশি বয়স্করা ও বেশ ভালো সময় কাটাচ্ছে এখনে। তিনি আরো বলেন,অন্যান্য দিনের চাইতে এই তিনদিন টিকেট বিক্রি হয়েছে কয়েকগুন বেশি, প্রতিটা রাইড চড়তে সবাই দীর্ঘলাইন ধরে অপেক্ষা করছে।

এদিকে আগামীতে এই শিশু পার্কে শিশুদের জন্য আরো নিত্যনতুন রাইড স্থাপন এবং বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির কথা জানান পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী রুই অং প্রু। তিনি বলেন, আগামীতে আমরা এই শিশু পার্ক নিয়ে আরো বেশ কিছু প্রকল্প হাতে নেব এবং পার্কের সময়সূচি বৃদ্ধি করা, নতুন নতুন রাইড স্থাপন করা, একটি রেস্টুরেন্ট চালু করাসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করে শিশুদের বিনোদনে আরো নতুন মাত্রা যোগ করবো যাতে যেকোন বন্ধে সবাই শিশু পার্কে আনন্দে মেতে ওঠে।

বান্দরবান পৌরসভার মেয়র (ভারপ্রাপ্ত) সৌরভ দাশ শেখর বলেন,পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে বান্দরবানের শিশুদের চিত্তবিনোদনের সুবিধার জন্য একটি শিশুপার্ক পৌরসভার কাছে হস্তান্তর করা হয় আর এরপরে শিশুদের পার্কে ভ্রমনের জন্য পৌরসভার কর্মচারীদের সহায়তায় প্রতিদিন ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত এই শিশু পার্ক চালু রাখা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন,বিজয়ের বন্ধে এবার প্রচুর দর্শনার্থীদের এই পার্কে আগমন ঘটেছে এবং কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়েছে শিশুপার্ক তবে দর্শনাথীরা যাতে আরো বেশি বিনোদন পেতে পারে তার জন্য আমরা আরো নতুন কিছু করার পরিকল্পনা করছি।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।