বান্দরবানের ৯ ইউনিয়নে ভোট কাল

আগামী ১১ নভেম্বর(বৃহস্পতিবার) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বান্দরবানের লামা ও নাইক্ষ্যংছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে বিএনপির কোন প্রার্থী অংশ না নিলেও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীই আওয়ামীলীগের নৌকার প্রতীকের সাথে লড়াই করতে মাঠে রয়েছে।

বান্দরবান জেলা নির্বাচন অফিস জানায়, আগামী ১১ নভেম্বর বান্দরবানের লামা ও নাইক্ষ্যংছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, আর ২য় ধাপের এই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে লামা উপজেলার ৭ইউনিয়নে ১৮জন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে আর সেখানে মোট ভোটার রয়েছে ৫৭হাজার ৯৮৪জন অন্যদিকে নাইক্ষ্যংছড়ির ২ইউনিয়নে ৫জন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে আর সেখানে মোট ভোটার রয়েছে ১৪ হাজার ৮৪৩জন। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ব্যালাট পোপরের মাধ্যমে ভোট প্রদান করবে ভোটাররা।

সূত্র জানা যায়,ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে বান্দরবানের লামা উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইউনিয়ন গুলো হচ্ছে,গজালিয়া, লামা, ফাঁসিয়াখালী, আজিজনগর, সরই, রুপসী পাড়া ও ফাইতং। আসন্ন এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ১৮ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৬৫ জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ২২১ জন প্রার্থী প্রতিদন্ধিতা করছেন।

সেখানে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্ধিতাকারী প্রার্থীরা হলেন,গজালিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাথোয়াইচিং মার্মা (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ বাবুল হোসেন (মোটর সাইকেল)। লামা সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মিন্টু কুমার সেন (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আক্তার কামাল (মোটর সাইকেল)। ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ নুরুল হোসাইন (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকের হোসেন মজুমদার (আনারস), মোঃ ওমর ফারুক (মোটর সাইকেল) এবং জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী মোঃ খোরশেদ আলম (লাঙ্গল)। আজিজনগর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ জসিম উদ্দিন (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ রশিদ আহমেদ (আনারস)। সরই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ ইদ্রিছ (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আবু হানিফ (আনারস)। রুপসীপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছাচিং প্রু মার্মা (নৌকা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম (আনারস)। ফাইতং ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মো.ওমর ফারুক (নৌকা),স্বতন্ত্র প্রার্থী মো.আবু তাহের (আনারস),আবদুল জলিল (চশমা) ও মো. শহিদ উল্লাহ্ (মোটর সাইকেল)।

অন্যদিকে নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলম। আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুর।এছাড়া মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র পদে নির্বাচন করছে নুরুল হাকিম। দৌছড়ি ইউনিয়নের অবস্থাও একই, সেখানে নৌকা প্রতীকে উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইমরানের বিপরীতে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান মুহাম্মদ হাবিব উল্লাহ।

বান্দরবান জেলা নির্বাচন অফিসার মো.রেজাউল করিম জানান, ১১নভেম্বর বান্দরবানের লামা ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনকে অবাধ ও সুষ্টভাবে সম্পন্ন করার লক্ষে ১৯জন ম্যাজিস্ট্রেট, ৬প্লাটুন বিজিবি, প্রতিকেন্দ্রে ২২জন পুলিশ ও আনসার সদস্য এবং র‌্যাবের সদস্যরা আইনশৃংঙ্খলার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।