বান্দরবানে গত দুই মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৩ জন

নারীর প্রতি সহিংসতা থেমে নেই সারা দেশে। প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে নারী নির্যাতন। দেশে গত ৯ মাসে ৯৭৫ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। এছাড়া ধর্ষণের পর হত্যার শিকার হয়েছেন ৪৩ জন এবং আত্মহত্যা করেছেন ১২ জন। তাদের মধ্যে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ২০৮ জন নারী। একটি বেসরকারি মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র(আসক) এর পরিসংখ্যানে এ তথ্যটি উঠে এসেছে।

বান্দরবান জেলার গত আগষ্ট এবং সেপ্টেম্বর মাসে ধর্ষণ শিকার হয়েছেন তিনজন। এর মধ্যে একটি গণধর্ষণ, একটি ৯ বছরের শিশু এবং একজন মানসিক ভারসাম্যহীন নারী। আর এই নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করেছেন পাহাড় বার্তা গবেষণার সেল এর প্রধান সুহৃদয় তঞ্চঙ্গ্যা।

পাহাড় বার্তা গবেষণার সেল তথ্য অনুসারে দেখা যায়, গত আগষ্ট মাসের ৮ তারিখে জেলার লামা উপজেলায় রাস্তা দেখিয়ে দিতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৯ বছরের এক শিশু। পরে পুলিশ ধর্ষক মো. কাদেরকে গ্রেফতার করে।

একই মাসে ৩১ আগষ্ট লামা উপজেলায় ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের এক যুবতী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। সাথে ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে ধর্ষক নরুল হুদা(২৭) পালিয়ে যায়, পরে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। অন্যদিকে ধর্ষকের লালসার শিকার হয় ভারসাম্যহীন এক নারীর। ঘটনাটি ২৭ সেপ্টেম্বর ঘটে বান্দরবান শহরে।

ধর্ষণের বিষয় নিয়ে জানতে চাইলে লামা উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল জানান, ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এমন তথ্য পেলে আইনি ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। সালিশির মাধ্যমে বিচার করা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের নিষেধ করা হয়েছে। আমরা চাই ধর্ষিতার পরিবার ন্যায় বিচার পাক।

এই ব্যাপারে লামা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানান, ধর্ষণের কোনো ছাড় নেই। গত আগষ্ট মাসে ধর্ষণ শিকার হওয়া ধর্ষকদের পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।