রুমার পাইন্দু ইউপি চেয়ারম্যানের বাসায় দুধর্ষ চুরি !

বান্দরবানে রুমায় পাইন্দু ইউপি চেয়ারম্যানের বাসায় দুধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। গত মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) রাতে রুমা সদরে লালনাগ পাড়ায় চেয়ারম্যান এর বাসায় চুরির ঘটনাটি ঘটেছে।

আজ বুধবার (১০ নভেম্বর) বিকাল সাড়ে চারটায় চেয়ারম্যানের সহধর্মিণী পিয়ানএংময় বম বলেন, গত মঙ্গলবার সকাল থেকে বাগান ও অন্যান্য কাজের জন্য চান্দা পাড়ায় ছিলাম। রাতে ঘরে ফিরা হয়নি। আজ বুধবার বিকাল তিনটার দিকে বাসায় পৌছেন। ঘরে ঢুকার পর শ্রমিকদের টাকা দিতে শুবার রুমে ঢুকে দেখতে পেলাম, স্টিল আলমিরার ড্রয়ার লক খোলা। তাড়াতাড়ি করে ধরে ছোট্ট তিনটি ব্যাগ দেখি, সব চিন খোলা। সেখানে রেখে যাওয়া নেকলেস, চেন ও কানের দুল প্রায় চার ভরি সোনা আর নেই। অপরটি ব্যাগে টাকা ছিল, ১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা, তাও সব শেষ। তখনও আমার স্বামী বাগানে ছিল। তাই স্বামীকে ঘটনা জানিয়ে বাসায় ডেকে আনেন।

পাইন্দু ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিদ্রোহী প্রার্থী উহ্লামং মারমা বলেন, চুরির ঘটনাটি সত্য হলেও এখনো থানায় সাধারণ ডায়রী (জিডি) করতে পারিনি। তাঁর ভাষ্যমতে, থানা পুলিশ তাকে জিডি না করে মামলা করতে বলেছেন। তাই বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) জিডি বা মামলা করব কি করবনা পারিবারিক আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

রুমা থানা ওসি মোহাম্মদ আবুল কাসেম বলেন চুরির ঘটনায় চেয়ারম্যানের বাসায় একজন এসআই নেতৃত্ব থানা পুলিশের টিম তদন্ত করে এসেছেন। তবে চুরির ঘটনার কোনো সিন্ড্রম খুঁজে পায়নি। এ চুরির ঘটনাটি হয়েছে কিনা, তা যথেষ্ট সন্দেহ আছে। তাই থানায় এসে সুস্পষ্ট অভিযুক্তের নাম উল্লেখ করতে বলা হয়েছে।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকে বলেছেন আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের চাপের মুখে বিদ্রোহী প্রার্থীতা থেকে সরে দাঁড়ানোর ফঁন্দি আঁটতে এসব রটানো হচ্ছে।

অন্যদিকে পাইন্দু ইউপি চেয়ারম্যান উহ্লামং মারমা বলেছেন, টাকা সোনা হারিয়েছি, তবে জায়গা জমি সব সম্পত্তি বিক্রি করে হলেও চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতা থেকে সরে দাঁড়াবেন না তিনি।

প্রসঙ্গত; নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১১ নভেম্বর।
তাই শেষ পর্যন্ত বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় থাকছেন উহ্লামং মারমা? এপ্রশ্ন এখন স্থানীয়দের মুখে মুখে?

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।