রোগীদের জোরপূর্বক ছাড়পত্র প্রদান করেন আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা !

রোগী শূন্য বান্দরবানের আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স , চিত্রটি আজ সোমবার সকাল ১১টায় ধারণ করা হয়
বান্দরবানের আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মোঃ মাহতাব উদ্দীন চৌধুরী কর্তৃক আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তিরত বিভিন্ন রোগীদের জোরপূর্বক উন্নত চিকিৎসার নামে কক্সবাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেফার ও আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পরিত্যাগের ছাড়পত্র প্রদান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগির চাপ কমানো এবং চিকিৎসা বাদ দিয়ে অবসর সময় কাটানোর জন্য এই ধরণের করেন বলে অভিযোগ ভুক্তোভোগীদের।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রোগী মোঃ ইসমাইল (রেজিঃ নং ৪০০/৬) বলেন, গতকাল টাইফয়েড ও জ্বরে আক্রান্ত হয়ে তিনি আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। কিন্তু আজ সোমবার সকাল ১০ টার সময় কর্তব্যরত উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মোঃ মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী পুরুষ ওর্য়াডে প্রথম রোগী দেখার সময় রোগীর আত্মীয় রোগীর পাশে যেতে চাইলে ডাঃ মাহতাব উদ্দিন রেগে যান এবং তিনি বলেন, আপনাকে এখানে আসতে নিষেধ করার পরও কেন আপনি ঢুকেছেন? যান আপনি রোগী দেখেন, আমি দেখব না। একেবারে সবাইকে ছাড়পত্র দিয়ে হাসপাতাল থেকে বের করে দেব। মোঃ ইসমাইল আরও বলেন, ডাঃ মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী সবাইকে এখনি হাসপাতাল ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেন।
আরেক রোগী মং প্রু মার্মা (রেজিঃ নং ৩৮৭/১) এর বাবা থোয়াইচা হ্লা মার্মা বলেন, আমার ছেলে মং প্রু মার্মা বিষ পান করার ফলে গত ৯মার্চ মং প্রু মার্মাকে হাসপাতালে ভর্তি করি। তখন কর্তব্যরত ডাঃ মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী আমার ছেলের চিকিৎসা করেন। গত রবিবার ছেলের অবস্থা জানতে চাইলে তিনি জানান, আপনার ছেলে সর্ম্পূণ সুস্থ। আগামী মঙ্গলবার আপনার ছেলেকে বাড়ী নিয়ে যেতে পারবেন। কিন্তু আজ সকালে আমার ছেলেকে পানবাজার এলাকায় দেখতে পাই এবং ছেলেকে জিজ্ঞাসা করলে সে জানায়, তাকে ছাড়পত্র দিয়ে হাসপাতাল থেকে বিদায় করে দিয়েছে।
উক্ত বিষয়ে থোয়াইচাহ্লা মার্মা আরও বলেন, আমি আবার হাসপাতালে ছেলেকে নিয়ে গেলে ডাঃ মাহতাব উদ্দিন বলেন, আমার ছেলেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার রেফার করা হয়েছে। তখন আমি উক্ত ডাক্তারের নিকট এতদিন পরে কেন উন্নত চিকিৎসা করার জন্য আমার ছেলেকে কক্সবাজার রেফার করা হয়েছে জানতে চাইলে ডাঃ মাহতাব উদ্দিন অত্যন্ত রাগান্বিত স্বরে বলেন, আমি তোমাকে বলতে বাধ্য নই।
উক্ত বিষয়ে ডাঃ মো মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কিছু রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করার কথা স্বীকার করেন কিন্তু সবাইকে রেফার করার বিষয়টি অস্বিকার করেন। তিনি আরো বলেন, রোগিরা মিথ্যা তথ্য সরবরাহ করছে।
একই ওয়ার্ডে কর্তব্যরত নার্স ডলি দাশকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, রোগীদেরকে ছাড়পত্র দেয়ার বিষয়ে শুনেছি কিন্তু আমি বিস্তারিত জানি না। তৎসময়ে প্রতিবেদক সরেজমিনে আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পুরুষ ওয়ার্ডে গেলে সমস্ত পুরুষ ওয়ার্ড রোগীশূণ্য অবস্থায় দেখা যায়।
এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে বান্দরবান জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ অংসুই প্রু মারমা এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।