সোলার স্ট্রিট লাইটে আলোকিত লামা পৌর শহর

লামা পৌরসভাস্থ মাতামুহুরী ব্রিজের ওপর স্থাপিত সোলার স্ট্রিট
সোলার স্ট্রিট লাইট প্রকল্প আলোকিত করছে বান্দরবানের লামা পৌর শহরের বিভিন্ন অন্ধকারাচ্ছন্ন এলাকা। বিদ্যুৎ সংযোগ ছাড়াই সূর্যের আলো থেকে শক্তি সংগ্রহ করে তা দিয়ে স্থাপিত সোলার স্ট্রিট অটো পদ্ধিতেই সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসলে এখন আলো ছড়ায়। পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এম.পি’র নির্দেশে রাতের বেলায় সাধারন মানুষের চলাচল সুবিধায় শহরের বিভিন্ন স্থানে সোলার স্ট্রিট লাইট স্থাপন করা হয়। তবে চুরি রোধে কোন ব্যবস্থা না রাখায় ইতিমধ্যেই সোলার স্ট্রিটগুলোর ব্যাটারি চুরি শুরু হয়েছে।
পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বান্দরবান ইউনিট অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বিন মোহাম্মদ ইয়াছির আরাফাত বলেন, লামা পৌরসভা এলাকার মাতামুহুরী ব্রিজ, লামা-রুপসীপাড়া সড়কের কাটাপাহাড়সহ ৪০টি স্থানে ৪০টি স্ট্রিট লাইট লাগানো হয়। মূলত বিদ্যুৎ না থাকা অবস্থায় সাধারন মানুষ যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাফেরা করতে পারেন সে জন্যই এই লাইটগুলো স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ স্ট্রিট লাইট প্রকল্পে ব্যয় হয়েছে প্রায় ৪০ লাখ টাকা। পাঁচ বছর মেয়াদকাল পর্যন্ত সোলার স্ট্রিট লাইট অক্ষত থাকবে এবং সার্ভিস দেবে।
এদিকে চুরি রোধে কোন ব্যবস্থা না থাকায় সোলার স্ট্রিটগুলোর ব্যাটারি চুরি শুরু হয়। গত কয়েকদিন আগে লামা গজালিয়া সড়কের টিটিএন্ডডিসি পাড়ার ইয়াহিয়া বাবুলের মৎস্য খামার সংলগ্ন স্থানে ও মধুঝিরি এলাকায় স্থাপিত স্টিটের ব্যাটারি চুরি হয়ে যায়। পরে ব্যাটারিসহ দুই চোরকে হাতে নাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন স্থানীয়রা। সোলার স্ট্রিট চুরি রোধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান, উন্নয়ন বোর্ডের সুপার ভাইজার প্রশান্ত ভট্টাচার্য।
পৌর শহরের কাটা পাহাড় এলকার বাসিন্দা নুরুল ইসলাম এবং টিটিএন্ড ডিসি পাড়ার বাসিন্দা মো. ইব্রাহিম, নুর মোহাম্মদ বলেন, পৌর বিদ্যুৎ খুঁটিতে স্থাপিত লাইটগুলো বেশির ভাগ সময় নষ্ট থাকে, ফলে এলাকা অন্ধকারাচ্ছন্ন থাকে। সোলার স্ট্রিট স্থাপিত হওয়ায় পুরো এলাকাই এখন আলোকিত থাকছে। তারা আরও বলেন, শহরের মোড়ে মোড়ে সোলার ষ্ট্রিট লাইট স্থাপিত হওয়ায় শহরবাসী বহু অপরাধ কর্ম থেকে রেহাই পাচ্ছেন এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়েছে। বিদ্যুতের লোডশেডিং হলেও সমস্যা হবে না। লোডশেডিং এর সময়ে সোলার লাইটগুলো আলোকিত করে তুলছে অন্ধকারাচ্ছন্ন এলাকা।
এ বিষয়ে লামা পৌরসভার মেয়র মো. জহিরুল ইসলাম জানান, পৌরসভার নিজস্ব বাতিগুলোর পাশাপাশি জনগণের বাড়তি সুবিধার জন্য সোলার স্ট্রিট লাইটগুলো পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি’র একান্ত প্রচেষ্টায় উন্নয়ন বোর্ড স্থাপন করা হয়। বিশেষ করে রাতে যখন বিদ্যুৎ থাকে না সে সময়ে বাতিগুলো উপকারে আসছে। রক্ষনাবেক্ষণ খরচও তুলনামূলক কম বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।