স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই বান্দরবানে সরগরম ঈদ বাজার

প্রখর রোদ আর করোনা ভীতিকে উপেক্ষা করে ক্রেতাদের ভীড় নেমেছে বান্দরবানের চৌধুরী মার্কেট,কেএসপ্রু মার্কেট, বার্মিজ মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেটগুলোতে। মানুষের ভীড়ে অনেকস্থানে তীল ধারণের ঠাই নেই,স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা করছে না অধিকাংশ ক্রেতা আর বিক্রেতা। কারো মুখে মাস্ক আছে, আর কারো মাস্ক নেই।

ঈদের কেনাকাটায় পরিবার পরিজন নিয়ে বাজার করতে গিয়ে অনেকেই মানছেনা স্বাস্থ্যবিধি। বাজারগুলোতে যতক্ষণ ভ্রাম্যমান আদালতের টিম তদারকি করে ততক্ষণ সাধারণ মানুষ মাস্ক ব্যবহার করলেও বেশিরভাগ সময় মাস্কবিহীন চলছে অনেকেই।

ঈদের বাজার করতে আসা মো.রহমান বলেন,বাজার করতে আসা মানে একটা বিপদ। পরিবারের ছোট বাচ্চাদের জন্য কাপড় নিতে আসলাম কিন্তু বাজারের যেই অবস্থা তাতে মাথা ঠিক থাকে না, অনেকেই মাস্ক মুখে দিচ্ছে না, আর গায়ের সাথে গা লাগিয়ে ধাক্কা দিয়ে চলাফেরা করছে।

চৌধুরী মার্কেটে বাজার করতে আসা ক্রেতা ফরিদা আক্তার বলেন,বান্দরবানে যদি ও করোনার প্রভাব কম তারপরে ও এখানকার কিছু মানুষ খামখেয়ালীপনা,অনেকে স্বাস্থ্যবিধি মানছে না, যা আমাদের জন্য ভয়াবহ বিপদ নিয়ে আসতে পারে।

এদিকে সাধারণ জনগণকে সর্তক করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিদিনই ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে, এসময় আইন অমান্য করার দায়ে বেশ কয়েকজনকে জরিমানা করার পাশাপাশি বেশিরভাগ ক্রেতা আর বিক্রেতাকে সর্তক করা হয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য।

বান্দরবান জেলা প্রশাসন এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.কায়েসুর রহমান বলেন,আমরা জনগণকে জরিমানার পাশাপাশি সর্তক করে যাচ্ছি কিন্তু অনেক মানুষ আইন অমান্য করে চোর-পুলিশ খেলা শুরু করেছে,যখন আমরা ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে বাজারে বাজারে পরিদর্শন করি তখন মুখে মাস্ক ব্যবহার করে, আর ভ্রাম্যমান আদালত চলে আসলেই অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মুখে মাস্ক ব্যবহার না করেই ঘোরাফেরা করছে।

তিনি আরো বলেন,আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবকিছু মনিটরিং করে যাচ্ছি, যারা সরকারি আইন অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই জরিমানার পাশাপাশি শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।