বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন দেশের সব মানুষ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বসবাস করবে : পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চেয়েছিলেন দেশের সব মানুষ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বসবাস করবে, তাঁর সেই স্বপ্ন পূরনে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। আজ শনিবার (২৮ ডিসেম্বর) রাঙামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলার রাইখালীর ঐতিহ্যবাহী পুরনো নারানগিরি রায় সাহেব বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ প্রয়াত ভদন্ত উ পঞ্ঞাকাওয়ি মহাস্থবির ভান্তের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় রায় সাহেব বৌদ্ধ বিহারের দায়ক দায়িকাদের আয়োজনে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া প্রধান দায়েকের বক্তব্যে পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন,পার্বত্য জেলার সকল সম্প্রদায়ের মানুষের শান্তির জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা শান্তি চুক্তি করেছিলেন, যার সুবাতাস এখনোও বিরাজমান, তাই সকল ধর্ম বর্ণের মানুষ এই প্রয়াত ভান্তের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় একত্র হয়েছেন। তিনি আরো বলেন, মানুষ পৃথিবীতে বেঁচে থাকেন তার সুকর্মের মাধ্যমে, তাই ভালো কাজ মানুষকে মৃত্যুর পরও বাঁচিয়ে রাখে।

শনিবার(২৮ ডিসেম্বর) রাইখালী স্বর্গীয় অংথোয়াইচিং চৌধুরী খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত রায় সাহেব বৌদ্ধ বিহারের দায়ক দায়িকাদের আয়োজনে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নারানগিরি বড়পাড়া বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ত নাগাওয়াসা মহাস্তবির। এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি বৌদ্ধ বিহারের বিহারধ্যক্ষ ভদন্ত আসবা মহাস্তবির।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন, বাংগালহালিয়া ডাকবাংলা পাড়া বৌদ্ধ বিহারের বিহারধ্যক্ষ ভদন্ত ঞানাওয়াইসা মহাস্তবির, চিৎমরম বৌদ্ধ বিহারের বিহারধ্যক্ষ ভদন্ত পামোক্ষা মহাস্তবির, চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পালি বিভাগের অধ্যাপক জিন বোধী ভিক্ষু।

এছাড়া অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে বিশেষ দায়ক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা, সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য চিংকিউ রোয়াজা, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য অংসুইপ্রু চৌধুরী, সদস্য প্রকৌশলী থোয়াইচিং মং মারমা, কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মফিজুল হক, রাজস্থলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান উবাচ মারমা, কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেল, চন্দ্রঘোনা থানার ওসি আশরাফ উদ্দিন, ৩২১ নং রাইখালী মৌজার হেডম্যান উচিংথোয়াই চৌধুরী বাবলু। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানের আহবায়ক থোয়াইসাপ্রু চৌধুরী রুবেল।

এদিকে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া উপলক্ষ্যে গতকাল( শুক্রবার) হতে শুরু হয়েছে রাইখালী স্বর্গীয় অংথোয়াইচিং চৌধুরী খেলার মাঠে ২ দিনব্যাপী জাতীয় ও ধর্মীয় পতাকা উত্তোলন এর মাধ্যমে কর্মসূচীর উদ্বোধন করা হয়। এরপর শোভাযাত্রা সহকারে শবদেহ আলং চাইংক্যই এ স্হানান্তর করা হয়, এছাড়া মারমা সম্প্রদায়ের সইং নৃত্য এবং ধর্মীয় নাটক পরিবেশিত হয়। উল্ল্যেখ যে, প্রয়াত ভদন্ত উ পঞ্ঞাকাওয়ি ৮৮ বছর বয়সে ৬৮ টি বর্ষা বাস করেন, তিনি পার্বত্য চট্রগ্রাম অঞ্চলের বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের একজন পূজনীয় ভান্তে হিসাবে সু-পরিচিত ছিলো।

অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে পার্বত্য চট্রগ্রাম,চট্রগ্রাম এবং দেশের অন্যান্য জায়গা হতে বিভিন্ন বিহারে পুজনীয় ভিক্ষু সংঘ এবং হাজার হাজার দায়ক দায়িকা উপস্হিত ছিলেন। অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া ক্রীড়া উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানস্বলের আশেপাশে মেলা বসে। পরে আতশবাজি ও ফানুস উড়ানোর মাধ্যমে ২ দিনব্যাপী অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।