বান্দরবানের শত বছরের রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারের জন্মকথা

১৮৯৪ সালে বান্দরবানের ঐতিহ্যবাহী রাজগুরু বিহার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। আর এই বিহার প্রতিষ্ঠার পেছনে ইতিহাস নির্ভর তথ্যগুলো আমার আপনাদের কাছে তুলে ধরছি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ৯ম বোমাং রাজা অগাসা উ সাকন্থংঞো এবং জমিদার রাজকুমার উ ক্যজাই প্রু সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতায় ও অর্থায়নে ১৮৯৪ সালে বিরাট গাছের লম্বা পিলার ব্যবহার করে এক অতীব নান্দনিক আকর্ষনীয় ক্যাং বা বিহার তৈরী করেছিলেন। সেই আমলের বৌদ্ধ বিহারের চর্তুদিকে দুটো করে সিংহ মূর্তি সম্বলিত চারটি প্রবেশদ্বার ছিলো। বিহারের দৈর্ঘ্য ৮০ হাত, প্রস্থ ৬০ হাত ছিলো। যাহা ভূমি থেকে সাতস্থর বিশিষ্ট উঁচু চূড়া ছিল। সেই বৌদ্ধ বিহার বা ক্যাং এর নাম ছিল জেদওয়াই ক্যাং বা জেতবন বিহার। বিহারাধ্যক্ষ রাজগুরু ছিলেন উ আজারা ছারাদ্। জেদওয়াই ক্যাং বা জেতবন বিহারের সৌন্দর্য বর্ণনা তদানীন্তন পার্বত্য চট্টগ্রাম অর্থাৎ বৃহত্তর পার্বত্য জেলা প্রশাসক হাছিন সন এর লেখা পুস্তকে লিপিবদ্ধ আছে।

বান্দরবানের বোমাং সার্কেল সূত্রে জানা যায়, ১৮৯৪ সালে কাঠের নির্মিত রাজগুরু বৌদ্ধ বিহার কালক্রমে জরাজীর্ণ হলে ৫৪ বছর পর ১৯৩৮ সালে ১৩তম বোমাং রাজা অগাসা: উ ক্যজসাই ১৩০০ মগী সন কচ্ছুং মােেসর শুক্লপক্ষের ৭তারিখ সম্পূর্ণ একক অর্থায়নে ও পৃষ্ঠপোষকতায় বর্তমান রাজগুরু ক্যাং নির্মাণ করেন। তিনি প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও প্রধান দায়ক হিসাবে আজীবন ছিলেন।

আরো জানা যায়, বর্তমান রাজগুরু ক্যাং (খিয়াংওয়া ক্যাং) নামে সুপরিচিত। এই বোমাং রাজগুরু ক্যায়াং এর রাজগুরু ও বিহারাধ্যক্ষের ধারাবাহিক নাম যথাক্রমে প্রথমত: রেভা: উঞানা ছারাদ্, দ্বিতীয়তম রোভা: উ গুনামেজু ছারাদ্, তৃতীয়তম রেভা: উঞানা ছারাদ্, চতুর্থতম রেভা: উ আজারা ছারাদ্, পঞ্চতম রোভা: উচাঈদা ছারাদ্, ষষ্ঠতম রেভা: উসুম্মানা ছারাদ্, সপ্তম আকাদাম্মা ছারাদ্, অষ্টম রেভা: উ পঞ্ঞাজতা মাহাথের (উচহ্লা ভান্তে)। উচহ্লা ভান্তে দায়িত্ব নেওয়ার সময় বিহারটির অবকাঠামো উন্নয়নের ব্যাপক ভূমিকা রাখে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ। জেলার বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মানের ধারাবাহিকতায় পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা’র চেষ্টায়, পরিষদের অর্থায়নে বিহার ঘিরে গড়ে তোলা হয় সীমানা প্রাচীর, ছাত্রবাস, জাদি এবং মূল বিহার।

আরো জানা যায়, গত ১৩ এপ্রিল অষ্টম রেভা: উ পঞ্ঞাজতা মাহাথের (উচহ্লা ভান্তে) প্রয়ানের পর গত ২৩ মে ইতিহাস ঐতিহ্য ও চলমান প্রথাগত ধারা অনুসারে বর্তমান বোমাং রাজা উ চ প্রু চৌধুরী’র সিদ্ধান্ত ক্রমে নবম রাজগুরু ও বিহারাধ্যক্ষ হিসাবে রেভা: উ ঞানাপিয়া (জ্ঞান প্রিয়) মহাথের এর নাম ঘোষনা করা হয়।

রেভা: উ ঞানাপিয়া (জ্ঞান প্রিয়) মহাথের বোমাং সার্কেলের ঐতিহ্যবাহী রাজ পরিবার ১৩তম রাজা বোমাংগ্রী উ ক্যজসাই এর পুত্র প্রয়াত রাজকুমার সাদ্ উ মংচ প্রু এর সন্তান। তিনি ১৯৫৪ সালের ৭ জুলাই জন্মগ্রহন করেন। বর্তমানে উনার ৩৩ ওয়া বর্ষাবাস চলমান। প্রথম দিকে চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার একাধিক বিহারে ৪ বছর বর্ষাবাস করেন। পরবর্তীতে ৬ বছর তিনি থাইল্যান্ডে ছিলেন। চট্টগ্রামের সুপরিচিত বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রাণ কেন্দ্র নন্দনকানন চিটাগং বুডিষ্ট টেম্পলে সর্বশেষ সূদীর্ঘ ২৩ বছর তিনি অবস্থান করেন।

২৮ মে বান্দরবান বোমাং সার্কেলের রাজা উ চ প্রু চৌধুরী রাজগুরু বিহারের নবম বোমাং রাজগুরু ও বিহারাধ্যক্ষ হিসাবে রেভা: উ ঞানাপিয়া (জ্ঞান প্রিয়) মহাথের কে দায়িত্ব প্রদান করেন।

আরও পড়ুন
Loading...