বান্দরবানে খেয়াং জনগোষ্ঠীর নবান্ন উৎসব ব্যুটাহ প্যই

মনোনাজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর দেবতা পূজার মধ্য দিয়ে বান্দরবানে নবান্ন উৎসব ব্যুটাহ প্যই পালন করছে খেয়াং জনগোষ্ঠী।

আজ শনিবার (২নভেম্বর) ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট এর আয়োজনে বান্দরবান সদরের গুংগুরু মধ্যম পাড়া এলাকায় এই নবান্ন উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

বান্দরবার পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য সিয়ং ম্রো সভাপতিত্বের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, এডিএম বদিউল আলম, সহকারী পুলিশ সুপার (লামা সার্কেল) রেজোয়ান, বান্দরবান ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী ইনস্টিটিউট এর পরিচালক মংনুচিং মার্মা।

আয়োজকরা জানান, অনুষ্ঠানের শুরুতে জুম ক্ষেতে দেবতার উদ্দেশ্যে জুমের ফসল ও মুরগী উৎসর্গ করেন পূজারীরা । আগামী বছর জুমের ফলন যেন আরো ভালো হয় সেই উদ্দেশ্যে এই পূজা।

পূজা শেষে জুম চাষের সরঞ্জামাদি ও জুমের নতুন ফসল প্রদর্শনের পাশাপাশি পরিবেশন করা হয় খেয়াং শিশুদের আনিলম নৃত্য। পরে নতুন ধানের তৈরি পিঠা পরিবেশন করা হয় আগত অতিথিদের মাঝে। আলোচনা সভা শেষে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে তাঁত বুনন ও পোশাক তৈরির সনদ প্রদান করেন মন্ত্রী। অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া এই উৎসব জানুয়ারি পর্যন্ত পাহাড়ের এক এক জনগোষ্ঠী ভিন্ন ভিন্ন সময়ে এই নবান্ন উৎসব করে থাকেন।

নবান্ন উৎসবে পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের এখানে ১১টি জাতিগোষ্ঠীর বসবাস। প্রত্যেকে নিজস্ব ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য এই নবান্ন উৎসব পালন করে থাকে।

তিনি আরও বলেন, ইতিমধ্যে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সম্প্রদায়ের, তাদের বর্ণ গোত্রের মাতৃভাষা শিক্ষার রক্ষার্থে ৫টি নিজস্ব মাতৃভাষার বই ছাপিয়েছেন। এভাবেই পর্যায়ক্রমে ভবিষ্যতে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীসমূহের ভাষা চর্চার জন্য সরকার আরো পদক্ষেপ নিচ্ছে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।