সামাজিক দুরত্ব না মানায় কাপ্তাইয়ে করোনার ঝুঁকি বাড়ছে

রাঙামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলাতে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। পূর্বে কাপ্তাই উপজেলা করোনা মুক্ত থাকলেও এখন কাপ্তাইয়ে প্রতিদিনই শোনা যাচ্ছে কেউ না কেউ করোনা আক্রান্ত হচ্ছে। বিশেষ করে লগডাউন শিথিল করার পর এর ব্যাপকতা অতিরিক্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে যেখানে প্রতিদিন সরকার এবং প্রশাসনিক ভাবে সবাইকে সচেতন করা হচ্ছে সামাজিক দুরত্ব রক্ষা করা জন্য। সেখানে কাপ্তাই এলাকায় ভিন্ন চিত্র লক্ষ করা যাচ্ছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দেখা যাচ্ছে, কিছু কিছু সচেতন নাগরিক সামাজিক দুরত্ব রক্ষা করে চলাফেরা করলেও অধিকাংশ ব্যক্তিই করোনা ভাইরাসের ভয় তোয়াক্কা করে মাস্ক ছাড়া, সামাজিক দুরত্ব না মেনে চলাফেরা করছে। যার ফলে দিন দিন কাপ্তাইতে বাড়ছে করোনার ঝুঁকি। বিশেষ করে কাপ্তাইয়ের নতুন বাজার এলাকা, রাইখালী বাজার এলাকা, বড়ইছড়ি বাজার সাপ্তাহিক হাটগুলোতে বিন্দুমাত্রই মানা হচ্ছেনা সামাজিক দুরত্ব।

অপরদিকে কাপ্তাইয়ের বেশির ভাগ সিএনজি চালক মানছে না প্রশাসনিক নিয়মকানুন। পুলিশের পক্ষ হতে সিএনজিতে ২ জনের উপর যাত্রী না নিতে বললেও কোথাও কোথাও মানা হচ্ছেনা সেই নিয়ম-কানুন। যার ফলে করোনা সংক্রমনের ঝুঁকি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে কাপ্তাই এলাকাতে। তবে বড়ইছড়ি – ওয়াগ্গা সড়কে গিয়ে দেখা যায়, এই সড়কে সিএনজিতে দুই জনের অধিক যাত্রী বহন করছে না চালকরা।

কাপ্তাই এলাকায় প্রথম থেকেই কঠোর অবস্থানে গিয়েছিল কাপ্তাই উপজেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী,কাপ্তাই পুলিশ বাহিনী। যার পরিপ্রেক্ষিতে করোনা ভাইরাস অনেকটাই নিয়ন্ত্রনে ছিলো কাপ্তাই উপজেলাতে কিন্তু সরকারি কর্তৃক লগডাউন শিথিল করার পর থেকেই দেশের বিভিন্ন জায়গার মানুষ প্রবেশ করেছে কাপ্তাই উপজেলাতে এবং প্রবেশ করার পর ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টন না মেনে অবাধে বাইরে ঘোরাফেরা করেছে। যার ফলে করোনা সংক্রমন বৃদ্ধি পেয়েছে।

কাপ্তাই উপজেলায় গত ২৪ মে থেকে শুরু করে এই পর্যন্ত ১৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে কাপ্তাইয়ের রাইখালী ইউনিয়নের পূর্ব কোদালা এলাকায় এক নার্স যুবক করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে।

এই বিষয়ে কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেল জানান, সরকার সীমিত আকারে অফিস, যানবাহন খুলে দিলেও সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার শর্তে মানুষের জীবিকার প্রয়োজনে এই লগডাউন শিথিল করেছে। তাই কাপ্তাই উপজেলা প্রশাসন সবসময় মানুষকে সচেতন করার জন্য অভিযান অব্যাহত রেখেছে। তিনি সকলকে মাস্ক পরিধান,সামাজিক দুরত্ব মেনে চলাফেরার অনুরোধ জানান।

কাপ্তাই থানার ওসি নাসির উদ্দীন জানান,পুলিশ সদস্যরা প্রতিটি যানবাহনে যাতে সামাজিক দুরত্ব মেনে মানুষ চলাচল করে সেই ব্যাপারে সবসময় কঠোর নজরদারি করছে। তিনি জানান,বিশেষ করে যাত্রীবাহি সিএনজি চালিত অটোরিকশাতে ২ জনের অধিক যাত্রী বহন করতে আমরা দিচ্ছি না।

কাপ্তাই ফোরামের পরিচালক উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এ আর লিমন উদ্বেগ প্রকাশ করে জানান, লগডাউন শিথিল করার পর কাপ্তাইয়ে সামাজিক দুরত্ব না মেনে চলাফেরা করার প্রবনতা বৃদ্ধি পেয়েছে, যার ফলে ভবিষ্যতে কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতে পারে।

এদিকে কাপ্তাইয়ের সচেতন নাগরিক এবং বিশিষ্টজনদের এখন একটাই প্রত্যাশা কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমন প্রতিরোধের জন্য প্রশাসনকে আবার কঠোর অবস্থানে যেতে হবে, তা না হলে করোনার হটস্পট হবে কাপ্তাই উপজেলা

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।