বান্দরবানের ক্রান্তিকালে একজন ক্যশৈহ্লা

বান্দরবান পার্বত্য জেলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে দ্রুত উদ্দ্যোগ গ্রহন করে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ। আর এই উদ্দ্যোগের পেছনের মানুষটির নাম পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা, যিনি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। বান্দরবানের মানুষের যেকোন ক্রান্তিকালে এগিয়ে আসা, হাত বাড়িয়ে দেওয়া মানুষটি তিনি। আর এনিয়ে এস বাসু দাশ ও কৌশিক দাশ এর প্রতিবেদন।

দেশে যখন করোনার আক্রমনের সংখ্যা একে একে বাড়ছে, ঠিক সেই সময়ে বান্দরবান জেলার মানুষকে করোনা মুক্ত রাখতে যথাযথ উদ্দ্যোগ গ্রহন করেন তিনি। এরি অংশ হিসাবে নিজের উপস্থিতিতে ৩শ সেচ্ছাসেবক তরুণ-তরুণীদের প্রশিক্ষন দিয়ে তিনি মাঠে নামান। প্রশিক্ষন কর্মশালায় বান্দরবানের বিভিন্ন গ্রাম ও পাড়ার বাসিন্দাদের নিরাপত্তার জন্য স্বেচ্ছাসেবকদের গামবুট, মাস্ক, রেইন কোট, গ্লাবস ও স্প্রে মেশিন প্রদান করা হয়। এই সেচ্ছাসেবকদের কার্যক্রম যা বান্দরবানের মানুষ অবলোকন করছেন ইতিমধ্যে।

সূত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার (২৪মার্চ) দুপুরে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের আয়োজনে জেলা পরিষদের হলরুমে করোনা প্রতিরোধে সেচ্ছা সেবকদের প্রশিক্ষন কর্মশালা অনুষ্টিত হয়। এসময় প্রশিক্ষনে বক্তারা কোভিড ১৯ এর ভয়াবহতা নিয়ে আলোচনা এবং এই ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন প্রচার প্রচারণা অনুসরণ করা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকার আহবান এবং সেচ্ছাসেবকদের মাঠে কাজ করার নির্দেশনা দেন। আর সেই মানুষটি আজ বুধবার থেকে করোনা সচেতনতা বাড়াতে জেলা শহরের অলিগলিতে চষে বেড়াচ্ছেন ।

আজ বুধবার (২৫ মার্চ) সকালে বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্ট’স কাউন্সিল বান্দরবান জেলা শাখার কার্যালয় প্রাঙ্গণে বান্দরবান পার্বত্য জেলার বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের প্রায় ২শ জন স্বেচ্ছাসেবককে একত্রিত করে পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শুরু করে করোনা প্রতিরোধে নানা কার্যক্রম।

আরো জানা গেছে, এসময় পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা এর নেতৃত্বে বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্ট’স কাউন্সিল বান্দরবান জেলা শাখার কার্যালয়ে থেকে শুরু করে বান্দরবানের বিভিন্ন ওয়ার্ডে বিভক্ত হয়ে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে স্প্রে ও বিভিন্ন স্থানে লিফলেট প্রদান,মাস্ক বিতরণ ও দেয়ালে দেয়ালে লাগানো হয় করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতামুলক পোষ্টার।

এসময় করোনা প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন হওয়ায় আহবান ও সুস্থ থাকতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রচার প্রচারণা অনুসরণ করার আহবান জানান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা।

পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পাহাড়বার্তা’কে ক্যশৈহ্লা বলেন, করোনা ভাইরাস নিয়ে আমরা খুব উদ্বিগ্ন কিন্তু আমরা যেন আতংকিত না হয়, সচেতন হয়। আমাদের বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের সহায়তায় বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছি এবং আজ তাদের নিয়ে মাঠে নেমেছি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে।

পার্বত্য জেলা চেয়ারম্যান আরো বলেন, করোনার ইতি না ঘটা পর্যন্ত বান্দরবান পৌর এলাকার ৯ ওয়ার্ডে ৯টি দলে ভাগ হয়ে প্রায় ২ শত স্বেচ্ছাসেবকরা বিভিন্ন স্থানে জীবাণুনাশক স্প্রে করবে, সেই সাথে জনসচেতনতামুলক লিফলেট বিতরণ ও মাইকিং করার কার্যক্রম চালিয়ে যাবে।

এদিকে বান্দরবানের সিভিল সার্জন ডা: অংসুই প্রু মারমা বলেন, পার্বত্য জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে এই উদ্যোগ গ্রহণ করায় পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে ধন্যবাদ জানাই। এসময় তিনি আরো বলেন, বান্দরবানে এখনো পর্যন্ত কোন করোনা রোগী নেই, আজকের স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে হোম কোয়ারেন্টিনে আছে ৪০ জন এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছে ৭ জন ।

পার্বত্য জেলা পরিষদের উদ্যোগে এই জনসচেতনতামুলক কার্যক্রমে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা, সদস্য মোজাম্মেল হক বাহাদুর,সদস্য ক্যসা প্রু, সিভিল সার্জন ডা.অং সুই প্রু মারমা, পার্বত্য জেলা পরিষদের জনসংযোগ কর্মকর্তা জুড়ি মংসহ রেড ক্রিসেন্ট, বান্দরবান স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন, বিডি ক্লিন বান্দরবান, মারমা স্টুডেন্টস কাউন্সিল,প্রথম আলো বন্ধু সভা,মেডিকেল এসোসিয়েশন, খেয়াং স্টুডেন্ট এসোসিয়েশেন,ম্রো স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন,বাংলাদেশ তঞ্চঙ্গ্যা স্টুডেন্ট ওয়েল ফেয়ার ফোরামের প্রায় ২শত স্বেচ্ছাসেবকরা এসময় কর্মসুচীতে অংশগ্রহণ করে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।